সৌদি আরবে গিয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার, ফিরিয়ে আনার আকুতি

সৌদি আরবে গিয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার, ফিরিয়ে আনার আকুতি

সৌদি আরবে গিয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার, ফিরিয়ে আনার আকুতি

নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের সিংলাব গ্রামের মুন্নি আক্তার গৃহকর্মীসোনারগাঁ উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের সিংলাব গ্রামের মুন্নি আক্তার গৃহকর্মী হিসাবে সৌদি আরবে গিয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে ১৮ আগস্ট রবিবার মুন্নির বাবা সিরাজুল ইসলাম নির্যাতিতা মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে লিখিত আবেদন করেছেন।

সিরাজুল ইসলাম লিখিত আবেদনে উল্লেখ করেন, তার মেয়ে মুন্নি আক্তার বাংলাদেশ সরকার ও সৌদি আরবের সব নিয়মকানুন মেনে ও প্রশিক্ষণ নিয়ে গৃহকর্মী হিসাবে গত ২ জুন সৌদি আরবে গমন করে। তার পাসপোর্ট নম্বর- বিপি ০০১২৫০৪, ভিসা নম্বর ৬০৫৯৩৮১৬২৮, তারিখ ৩০.০৪.২০১৯।
এরপর মুন্নি আক্তার তার বাবা মাকে ফোন করে সৌদী গৃহকর্তা ও তার ছেলে কর্তৃক যৌন নির্যাতন সহ জলন্ত সিগারেটের আগুন দিয়ে স্পর্শকাতর স্থানে ছ্যাকা দিয়ে নির্যাতন করার কথা জানায়। তাই নির্যাতিতা মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সিরাজুল ইসলাম রবিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি লিখিত আবেদন করেন।

এরপর মুন্নি আক্তার তার বাবা মাকে ফোন করে সৌদী গৃহকর্তা ও তার ছেলে কর্তৃক যৌন নির্যাতন সহ জলন্ত সিগারেটের আগুন দিয়ে স্পর্শকাতর স্থানে ছ্যাকা দিয়ে নির্যাতন করার কথা জানায়। তাই নির্যাতিতা মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সিরাজুল ইসলাম রবিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি লিখিত আবেদন করেন।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার সিরাজুল ইসলামের লিখিত আবেদনপত্রের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আবেদনপত্রটি অতিদ্রুত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

নির্যাতিতার বাাবা  তার লিখিত আবেদনে উল্লেখ করেন, তার মেয়ে মুন্নি আক্তার বাংলাদেশ সরকার ও সৌদি আরবের সব নিয়মকানুন মেনে ও প্রশিক্ষণ নিয়ে গৃহকর্মী হিসাবে গত ২ জুন সৌদি আরবে গমন করে। তার পাসপোর্ট নম্বর- বিপি ০০১২৫০৪, ভিসা নম্বর ৬০৫৯৩৮১৬২৮, তারিখ ৩০.০৪.২০১৯।
তারপর মুন্নি আক্তার তার বাবা মাকে ফোন করে সৌদী গৃহকর্তা ও তার ছেলে কর্তৃক যৌন নির্যাতন সহ জলন্ত সিগারেটের আগুন দিয়ে স্পর্শকাতর স্থানে ছ্যাকা দিয়ে নির্যাতন করার কথা জানায়। তাই নির্যাতিতা মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সিরাজুল ইসলাম রবিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি লিখিত আবেদন করেন।

এরপর মুন্নি আক্তার তার বাবা মাকে ফোন করে সৌদী গৃহকর্তা ও তার ছেলে কর্তৃক যৌন নির্যাতন সহ জলন্ত সিগারেটের আগুন দিয়ে স্পর্শকাতর স্থানে ছ্যাকা দিয়ে নির্যাতন করার কথা জানায়। তাই নির্যাতিতা মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সিরাজুল ইসলাম রবিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি লিখিত আবেদন করেন।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার সিরাজুল ইসলামের লিখিত আবেদনপত্রের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আবেদনপত্রটি অতিদ্রুত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

পাঠকের মন্তব্য