গোলাম রাব্বানীর নির্দেশে আঞ্চলিক দায়িত্বে রাকিব

গোলাম রাব্বানীর নির্দেশে আঞ্চলিক দায়িত্বে রাকিব

গোলাম রাব্বানীর নির্দেশে আঞ্চলিক দায়িত্বে রাকিব

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। নেতা হয়ে এসেছেন মাস দেড়েক আগে। অভিযোগ রয়েছে, মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে কমিটির নেতা হয়েছেন তিনি।

এ নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় আলোচনা-সমালোচনাও চলছে। অভিযোগ উঠেছে, বড় ধরনের আর্থিক লেনদেনের বিনিময়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি দেয়া হয়েছে। পদপ্রার্থীরা জানায়, রাকিব নেতা হয়ে এসেছেন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর মাধ্যমে।

রাকিব শুধু ইবি ছাত্রলীগের নেতা হয়ে আসেনি। এসেছেন কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, পাবনা এলাকার নেতা বানানোর আঞ্চলিক দায়িত্ব নিয়েও। এ দায়িত্ব দিয়েছেন সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। তার নির্দেশনায় রাকিব টাকার বিনিময়ে এ অঞ্চলের নেতা বানানোর বিষয়টি দেখভাল করে থাকেন। এমন কথোপকথন সংক্রান্ত ৭ মিনিট ২৭ সেকেন্ডের একটি অডিও ক্লিপ যুগান্তরের হাতে এসেছে।

ফোনালাপটি ঈদুল আজহার আগে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। অডিওতে রাকিবুল ইসলাম রাকিব পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটিতে মাহমুদুল হাসান নামের এক প্রার্থীকে নেতা বানাতে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনা করেছেন। তাদের এ কথোপকথনে উঠে এসেছে রাকিবের নেতা হওয়ার পেছনে টাকার বিনিময়ে কাঠ-খড় পুড়িয়ে ছাত্রলীগকে ম্যানেজ করার বিষয়টি। কথা বলেছেন পূর্বের কমিটি স্থগিত করার বিষয়ে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, আমি অডিও শুনেছি, তবে এ বিষয়ে আমার কোনো আইডিয়া নেই। রাকিবকে ফোন করে কারণ জানতে চেয়েছি। তাকে শোকজ করা হবে। সে কেন, আর কার সঙ্গে কথা বলেছে এর ব্যাখ্যা অবশ্যই তার কাছে জানতে চাওয়া হবে। এছাড়াও ওই অডিওতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ড্রাইভার নিয়োগে প্রার্থী খোঁজার বিষয়টি উঠে আসে।

রাকিবের বিরুদ্ধে এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। ইবি শাখার সম্পাদক হওয়ার আগের দিনও তার বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত খবর যুগান্তরে প্রকাশিত হয়। এ বিষয়ে ইবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব যুগান্তরকে বলেন, অডিওটি আমার না। কিছু ষড়যন্ত্রকারী অডিও তৈরি করে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

পাঠকের মন্তব্য