পাইকগাছার জবর দখলকারী দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন 

পাইকগাছার জবর দখলকারী দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন 

পাইকগাছার জবর দখলকারী দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন 

বহু অপকর্মের হোতা, জবর দখলকারী, আইন অমান্যকারী খুলনার পাইকগাছার হিতামপুর গ্রামের মৃত যতীন্দ্রনাথ বিশ্বাসের পুত্র বিমল বিশ্বাস ও স্বপন বিশ্বাসের বিরুদ্ধে লিখিত সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক স্কুল শিক্ষক। 

সোমবার বিকালে পাইকগাছা প্রেসক্লাবে লিখিত সংবাদ সম্মেলনে উপজেলার গদাইপুর গ্রামের মৃত হরিপদ অধিকারীর পুত্র সহকারী শিক্ষক বিজন অধিকারী জানান, গদাইপুর ও হিতামপুর মৌজায় এস,এ ১০৮, ১২০, ৩৪০ ও ১৯৯ খতিয়ানের সাড়ে ২৭ শতক সম্পত্তি হিতামপুর গ্রামের মৃত অনিল বিশ্বাসের পুত্র অসিত ভূষণ বিশ্বাসের নিকট থেকে একই এলাকার অনিল কৃষ্ণ অধিকারী কোবলা দলিল মূলে খরিদ করে ভোগ দখলে থাকেন এবং অনিল কৃষ্ণ অধিকারীর নামে রেকর্ড হয়। অনিল কৃষ্ণ অধিকারীর মৃত্যুর পর তার ওয়ারেশগণ উক্ত সম্পত্তি হতে আমার স্ত্রী সুচিত্রা অধিকারী (শিক্ষক)-এর নিকট ২০০৫ সালের ৩১ আগষ্ঠ তারিখে কোবলা দলিলে ২৭ শতক সম্পত্তি হস্তান্তর করেন। সেই থেকে উক্ত সম্পত্তি আমরা শান্তিপূর্ণভাবে ভোগ দখল করে আসছি। যা বর্তমান সেটেলমেন্ট জরিপে আমার স্ত্রী সুচিত্রা অধিকারীর নামে রেকর্ড হয়। উক্ত জমিতে আমাদের দীর্ঘদিনের যাতায়াতের পথও রয়েছে। কিন্তু বিমল ও স্বপন বিশ্বাস বিভিন্ন সময় উক্ত সম্পত্তি জবর দখলের জন্য বিভিন্ন হুমকি-ধামকি অব্যাহত রাখে। 

এমনকি সম্পত্তিতে যাতায়াতের পথও বন্ধ করে দেয়। সে কারণে তাদের বিরুদ্ধে উপজেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফৌজদারী মামলা দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত ২০১৪ সালের ২ এপ্রিল তারিখে সম্পত্তিতে যাতায়াতের পথ উন্মুক্ত করণ ও আমাদের বসবাসের সীমানায় তাদেরকে না আসার জন্য আদেশ প্রদান করেন। এছাড়া বিজ্ঞ আদালত পথ উন্মুক্ত করার জন্য ওসি, পাইকগাছাকে নির্দেশ প্রদান করলে সরেজমিনে যেয়ে পথ উন্মুক্ত করে দেন। এরপর বিমল বিশ্বাস বিজ্ঞ আদালতের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে জেলা জজ আদালতে আপীল মামলা দায়ের করেন। বিজ্ঞ জেলা আদালত মামলাটি শুনানী অন্তে নিম্ন আদালতের আদেশ বহাল রাখেন। কিন্তু আইন অমান্যকারী ব্যক্তিদ্বয় আদালতের আদেশ অমান্য করে আমাদের বিরুদ্ধে একের পর এক বিভিন্ন দপ্তরে হয়রানীমূলক অভিযোগ দায়ের করে চলেছেন। 

এমনকি একটি আঞ্চলিক পত্রিকায় প্রেসক্লাব পাইকগাছা নামে সাংবাদিক সম্মেলন দেখিয়ে সংবাদ পরিবেশন করিয়েছেন। যার কোন ভিত্তি নাই। উক্ত সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে, পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী আদালতের মাধ্যমে ১৪৪ ধারা জারী করেছেন। কিন্তু বিজ্ঞ আদালানতে বিমল বিশ্বাস এম.আর ১০১/০৯ নং মামলায় ১৪৪ ধারা জারীর আবেদন করলে বিজ্ঞ আদালত কেন ১৪৪ ধারা জারী করা হবে না, সে মর্মে আমার ও আমার স্ত্রীসহ ৪জনকে ধার্য্য তারিখে জবাব দেয়ার জন্য নোটিশ প্রদান করেছেন। অথচ, বিমল বিশ্বাস আদালতের আদেশ নিয়েও মিথ্যাচার করে কথিত সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। আমি উক্ত সংবাদ সম্মেলনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করেছেন শিক্ষক বিজন অধিকারী। 

পাঠকের মন্তব্য