ওমান ফেরত নার্গিস দিলেন নির্যাতনের বর্ণনা

ওমান ফেরত নার্গিস দিলেন নির্যাতনের বর্ণনা

ওমান ফেরত নার্গিস দিলেন নির্যাতনের বর্ণনা

পরিবারে ভাগ্যের চাকা ফেরাতে গিয়ে নিজেই নির্যাতনের স্বীকার হয়ে প্রবাসী বাংলাদেশীদের সহায়তা দেশে এসে নিজবাড়ীতে বসে নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন অতি সম্প্রতি ওমান থেকে ফিরে আসা এক নারী। শনিবার দুপুরে জেলার গৌরনদী উপজেলার প্রত্যান্ত সিংগা গ্রামের কামাল মাতুব্বরের স্ত্রী নার্গিস বেগম নিজবাড়ীতে সাংবাদিকদের জানান, চলতি বছরের মে মাসে তার পূর্ব পরিচিত উজিরপুর উপজেলার মোড়াকাঠী গ্রামের মান্নান সরদারের পুত্র সিরাজুল ইসলাম ওমানে বিশ হাজার টাকা বেতন ও ভাল চাকরীর প্রলোভন দেখায়। পরিবারের অর্থনৈতিক চাকা সচল করার জন্য তিনি সিরাজের কথায় রাজী হয়ে ওমান যাওয়ার জন্য তার (সিরাজ) হাতে ৮০ হাজার টাকা তুলে দেন। পরবর্তীতে ১৭ জুন তিনি ওমানে চলে যান। সেখানে সিলেট জেলার পারভীন বেগম নামের এক ওমান প্রবাসী তাকে বিমানবন্দর থেকে রিসিভ করে তার বাসায় নিয়ে যায়। 

তিনি আরও জানান, ওমানে যাওয়ার কয়েকদিন পরে প্রবাসী পারভীন তাকে টাকার বিনিময়ে অনৈতিক কাজ করার প্রস্তাব করে। তিনি (নার্গিস) পারভীনের কথায় রাজী না হওয়ায় তাকে ব্যাপকভাবে শারিরিক নির্যাতন চালায়। পরে বাংলাদেশ থেকে টাকা পাঠিয়ে ওমান প্রবাসীদের সহায়তায় অতিসম্প্রতি নার্গিস দেশে ফিরে আসেন। 

এঘটনায় নির্যাতনের স্বীকার হওয়া নার্গিস বেগম গত কয়েকদিন পূর্বে দালাল সিরাজুল ইসলামের বিররুদ্ধে ক্ষতিপূরনের জন্য বামরাইল ইউনিয়নের গ্রাম আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এবিষয়ে সিরাজুল ইসলাম জানান, তার স্ত্রী ওমানে থাকার কারনে নার্গিসের পরিবারের লোকেরা নার্গিসকে বিদেশ নেওয়ার কথা বললে মাত্র ১৫ হাজার টাকার বিনিময়ে তাকে ওমানে নেওয়া হয়। এমনকি সেখানে (ওমানে) তাকে ১৮ হাজার টাকা বেতনে বাসাবাড়িতে চাকরী দেওয়া হয়। কিন্তু সেখানে তিনি (নার্গিস) চাকরী না করে দেশে ফিরে এসে নির্যাতন ও অনৈতিক কাজের মিথ্যে অভিযোগ ছড়াচ্ছেন।

পাঠকের মন্তব্য