জাকির নায়েককে প্রকাশ্যে কথা বলা নিষিদ্ধ করলো মালয়েশিয়া 

জাকির নায়েককে প্রকাশ্যে কথা বলা নিষিদ্ধ করলো মালয়েশিয়া 

জাকির নায়েককে প্রকাশ্যে কথা বলা নিষিদ্ধ করলো মালয়েশিয়া 

জাকির নায়েককে প্রকাশ্যে কথা বলতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। বিতর্কিত এই ইসলামী বক্তাকে মালয়েশিয়ায় রাখতে চান না জানিয়ে মাহাথির দাবি করেছেন, তাকে কোথায় ফেরত পাঠানো যায় সেটি খতিয়ে দেখছে তার সরকার।

মঙ্গলবার মালয়েশীয় রেডিও স্টেশন বিএফএম-এর ‘ব্রেফফার্স্ট গ্রিল’ শো-তে মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, জাকির নায়েক এই দেশের (মালয়েশিয়ার) নাগরিক নয়। পূর্ববর্তী সরকার তাকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু, বিধি অনুযায়ী তিনি দেশের ব্যবস্থা ও রাজনীতি নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে পারেন না। তিনি বিধি লঙ্ঘন করেছেন। তাকে আর প্রকাশ্যে কথা বলতে দেওয়া হবে না।

মালয়েশিয়ার ৬০ শতাংশ মানুষ মুসলমান আর বাকিরা চীন ও ভারতের নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী। এদের বেশিরভাগই সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ। সম্প্রতি জাকির নায়েক মন্তব্য করেছেন, ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের চেয়ে মালয়েশিয়ায় থাকা সংখ্যালঘু হিন্দুরা শতগুণ বেশি অধিকার ভোগ করছেন। অথচ মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী হিন্দুরা দেশটির চেয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে সমর্থন করেন বেশি। এহেন মন্তব্যের পর মালয়েশিয়ায় তোপের মুখে পড়েছেন জাকির।

ভারতের আদালতে অর্থপাচার ও ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়িয়ে জিহাদি কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধ করার একাধিক অভিযোগ রয়েছে জাকিরের বিরুদ্ধে। ভারতে ছেড়ে তিন বছর ধরে মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন তিনি। এর আগে দিল্লির পক্ষ থেকে জাকিরকে ফেরত পাঠানোর আনুষ্ঠানিক আবেদন করা হলেও মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বিষয়টিকে নাকচ করেছিলেন। বলেছিলেন, ন্যায়বিচার না পাওয়ার আশঙ্কা থাকলে জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠানো হবে না। তবে তাকে নিয়ে স্বস্তিতে নেই মালয়েশিয়া সরকারও।

ধারণা করা হচ্ছে, মালয়েশিয়ায় জাকির নায়েকের বিপুল সংখ্যক অনুসারী থাকায় তাকে ভারতের হাতে তুলে দেয়ার ব্যাপারে মালয়েশিয়া সরকারের এতো সংশয়। তবে, তাকে অন্য কোথায় পাঠানো যায় কিনা সেটা ভাবছেন মাহাথির ব্যাপারে। বলেছেন, তাকে কোথায় পাঠানো যায় আমরা তা খুঁজে দেখার চেষ্টা করছি, তবে কেউ তাকে নিতে চায় না।

পাঠকের মন্তব্য