প্রধানমন্ত্রী এ্যাকশনে, স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তখন চাঁদাবাজদের অনুষ্ঠানে চিফ গেস্ট !  

প্রধানমন্ত্রী এ্যাকশনে, স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তখন চাঁদাবাজদের অনুষ্ঠানে চিফ গেস্ট !  

প্রধানমন্ত্রী এ্যাকশনে, স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তখন চাঁদাবাজদের অনুষ্ঠানে চিফ গেস্ট !  

কোন স্বার্থে কোন অর্থে কোন উদ্দেশ্যে মন্ত্রীদেরকে প্রধান অথিতি হিসেবে সংগঠনে দাওয়াত দেয়া হয়, সে বিষয়ে হয়তো মন্ত্রীরা নিজেই জানেন না!বলে মন্তব্য করেছেন বঙ্গবন্ধুর ফাউন্ডেশনের লাইফ মেম্বার এবং কবি জুলখোয়াজ জাওয়াদিন । শনিবার ফেসবুকে পোস্ট করা এক স্ট্যাটাসে তিনি এ মন্তব্য করেছেন। একইসাথে তিনি বলেছেন, দেশ ও দল বাঁচাতে এই মুহূর্তে যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চাঁদাবাজ-দুর্নীতিবাজদের বিরোদ্ধে কঠিন এ্যাকশনে, আইনের রক্ষক মাননীয় স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তখন চাঁদাবাজ- দূর্নীতিবাজদের অনুষ্ঠানের চীফ গেষ্ট...! 

"""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রে স্বীকৃত সাতটি সহযোগী ও দুটি ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন। সহযোগী সংগঠনগুলো হচ্ছে যুবলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, যুব মহিলা লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ ও তাঁতী লীগ। ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন হলো ছাত্রলীগ ও জাতীয় শ্রমিক লীগ। দলের গঠনতন্ত্রে এর বাইরে কোনো সংগঠনের অস্তিত্ব নেই। বাকি সব ভুঁইফোড়। বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধুর পরিবারের নামে সংগঠন করার জন্য অবশ্যই বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট' এর অনুমোদন নিতে হবে; অনুমোদনহীন সংগঠন অবৈধ সংগঠন হিসাবে গন্য হবে জোড় দাবি করে আসছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ।    

""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""""
 
পাঠকদের জন্য তা হুবহু তুলে ধরা হলো-

যখন প্রধানমন্ত্রী কঠোর এ্যাকশনে, আইনের রক্ষক স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তখন চাঁদাবাজ-দূর্নীতিবাজদের অনুষ্ঠানের চিফ গেস্ট...! 

দুর্নীতিবাজদের দুর্নীতি করার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছেন এমপি ও মন্ত্রী মহোদয়গন! ওদের দুর্নীতির উৎস হিসেবে মন্ত্রীরা ওদের সংগঠন এর মিটিং এ প্রধান অথিতি হিসেবে যান, বক্তৃতা দেন ! এর পর শুরু হয় প্রতিটি অনলাইন, ইলেক্ট্রনিক এবং প্রিন্ট মিডিয়ায় দুর্নীতিবাজ সংগঠনের প্রচার প্রচারণা! দুর্নীতিবাজদের দুর্নীতি এমপি মন্ত্রী মহোদয়গনের নাম ব্যবহার করেই হয়! কোন স্বার্থে কোন অর্থে কোন উদ্দেশ্যে মন্ত্রীদেরকে প্রধান অথিতি হিসেবে সংগঠনে দাওয়াত দেয়া হয়, সে বিষয়ে হয়তো মন্ত্রীরা নিজেই জানেন না!

বর্তমানে বহুল আলোচিত বিষয় হলো বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন! যে সংগঠনের প্রতিষ্টাতা সজীব ওয়াজেদ জয় এবং সভাপতি ড. এ,কে আব্দুল মোমেন। স্বঘোষিত প্রতিষ্টাতা সেজেছেন এডভোকেট মশিউর মালিক! বন্যার্ত্যদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দানের উদ্দেশ্যে সংগৃহীত অর্থ আত্মসাৎ, ডঃ মোমেন সাহেবের স্বাক্ষর জ্বাল করে পদ/কমিটি বিক্রীসহ সংগঠনের ভিতর থেকে অনেক দুর্নীতি/অনিয়ম/চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে মশিউর মালেককে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দিয়েছে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের ডক্টর একে মুমিন স্যার এর সাপুর্টারগণ।

চাঁদাবাজী/ধান্ধাবাজীতে অতিষ্ঠ হয়ে ড. মোমেন সাহেব মশিউর মালেকের ডাকা কোন প্রোগ্রামে যাচ্ছেন না। এমনকি জাতীয় শোক দিবসের প্রোগ্রামে আমির হোসেন আমু ভাই চীফ গেস্ট থাকার পরেও মোমেন সাহেব সভাপতির আসনে বসেননি বা অনুষ্ঠানে থাকেননি। ফলে ক্ষুব্ধ হয়ে দ্রুত অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন আমু ভাই। 

মশিউর মালেক সংগঠনের কোনো ইলেক্টেড সভাপতি নয়। বর্তমান মাননীয় সভাপতি ডক্টর একে মুমিন স্যার বিদেশে থাকায় নির্বাহী আদেশদাতা মশিউর মালেক কতৃক বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নামে ২৮ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকেল ৪ঃ০০ টায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট, কাকরাইলে নেত্রীর জন্মদিনের অনুষ্ঠানের নামে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়কে ব্ল্যাকমেইলিং করার উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রন জানানো হয়েছে! 

ডক্টর একে মুমিন স্যার প্রকাশ্যে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের মিটিং এ সকলকে জানিয়ে দিয়েছেন সজীব ওয়াজেদ জয় হচ্ছেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের মেইন প্রতিষ্টাতা সভাপতি ! এরপর থেকেই ওয়ান ম্যান গঠনতন্ত্র ওয়ান ম্যান সংগঠনের আম্ব্রেলার ভিতর থেকে বের হয়ে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের মেজরিটি নেতাকর্মী মিটিং করে ঐক্যমতের ভিত্তিতে মশিউর মালেককে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন থেকে অব্যাহতি দেন! এবং সিদ্ধান্ত নেন ডক্টর একে মোমিন স্যার আমেরিকা থেকে ফিরে আসা না পর্যন্ত কোনো ভুয়া দাবীদার স্বঘোষিত নির্বাহী সভাপতির আন্ডারে ওরা কোনো মিটিং মিছিল এ অংশ গ্রহণ করবেননা!

দেশ ও দল বাঁচাতে এই মুহূর্তে যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চাঁদাবাজ-দুর্নীতিবাজদের বিরোদ্ধে কঠিন এ্যাকশনে, আইনের রক্ষক মাননীয় স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তখন চাঁদাবাজ- দূর্নীতিবাজদের অনুষ্ঠানের চীফ গেষ্ট...! 

মাননীয় মন্ত্রী এ সময়ে এমনটা আপনাকে মোটেই মানায় না।

ফেসবুক স্ট্যাটাস : জুলখোয়াজ জাওয়াদিন

পাঠকের মন্তব্য