ভারত সফর ঘিরে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিএনপি নেতার আহ্বান 

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন

আসন্ন ভারত সফরে দেশ এবং দেশের জনগণের স্বার্থবিরোধী কোনো কাজ না করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, ‘দেশ এবং দেশের জনগণের স্বার্থহানি হয়, ক্ষতি হয় ভারতের এমন কোনো প্রস্তাবে আপনি রাজি হবেন না।’ বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে ড. মোশাররফ এ আহ্বান জানান।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে। ড. মোশাররফ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে এখন থেকেই সাবধান করতে চাই। আপনি ভারতে যাচ্ছেন ভালো কথা। কিন্তু দেশ ও দেশের জনগণের স্বার্থহানি হয় ভারতের এমন কোনো প্রস্তাবে আপনি রাজি হবে না।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এর আগে ভারত থেকে এসে তিনি বলেছিলেন- ভারতকে এত দিয়েছি, তারা এই ঋণ শোধ করতে পারবে না। সুতরাং এবার এমন কিছু করবেন না যাতে জাতীয় স্বার্থ ব্যাহত হয়।’

চার দিনের সফরে বৃহস্পতিবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার এ সফরে যোগাযোগ, সংস্কৃতি, কারিগরি সহযোগিতা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ খাতে আটটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে জানিয়েছেন ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী।

এছাড়া দুর্নীতিবিরোধী অভিযান প্রসঙ্গে বিএনপির জ্যেষ্ঠ এ নেতা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী স্বীকার করেছেন যে, ১/১১ ঠেকানোর জন্য তিনি দুর্নীতি, চাঁদাবাজি ও ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছেন। আমাদের প্রশ্ন- দেশ ১/১১ এর দিকে যাবে এমন পরিস্থিতি কেন সৃষ্টি করেছেন?’

তিনি বলেন, ‘সাবেক ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন- প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছা প্রকাশ করেছেন সেই কারণে এই অভিযান। আমাদের প্রশ্ন- প্রধানমন্ত্রীর আগে কেন সদিচ্ছা ছিল না?’

ড. মোশাররফ বলেন, ‘আজকে ক্যাসিনো, চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে যেই অভিযান চলছে আমরা মনে করি এর মাধ্যমে চুনোপুঁটিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই ধরনের কাণ্ড-কারখানা সরকারের সমর্থন ও প্রশাসনের সহযোগিতা ছাড়া ঘটতে পারে না।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মো. ফখরুল আলমের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-তথ্যবিষয়ক সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, কৃষকদলের সদস্য কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

পাঠকের মন্তব্য