যমুনা ফিউচার পার্ক তৈরির কথা শুনেই মানুষ পাগল বলতো

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ালমার্ট-কসকো-স্যাম’স ক্লাবের আদলে বাংলাদেশি ক্রেতাদের জন্য প্রথম হোলসেল হাইপার মার্কেট ‘হোলসেল ক্লাব’ উদ্বোধন করেছে যমুনা গ্রুপ।

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কে হোলসেল ক্লাবটির উদ্বোধন করেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এবং যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, যমুনা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শামীম ইসলাম, পরিচালক মনিকা নাজনিন ইসলাম, পরিচালক সুমাইয়া হোসেন ইসলাম (রোজালিন), পরিচালক (হিসাব) শেখ মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ, পরিচালক কামরুল ইসলাম, পরিচালক জাকির হোসেন, পরিচালক মেহনাজ ইসলাম (তানিয়া) প্রমুখ।

যমুনা ফিউচার পার্কের বেইজমেন্ট-২-এ অবস্থিত হোলসেল ক্লাবটির আয়তন প্রায় ১ লাখ বর্গফুট। এ সুপারশপ সাধারণ মানুষের জন্য ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে। কার পার্কিং সুবিধাসহ হাইপার মার্কেটের শতভাগ ভেজালমুক্ত দেশি-বিদেশি ৫ শতাধিক পণ্য থাকবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, অন্যকে প্রতারিত কিংবা চিট করে ভালো থাকা যায় না। বরং সততা, আন্তরিক চেষ্টা এবং নিরল প্রচেষ্টার মাধ্যমে ব্যবসা করলে যত বাধা প্রতিকূলতাই আসুক সফলতা আসবে।

তিনি বলেন, যমুনা ফিউচার পার্কের মতো এত বড় এটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে অনেক বাধা পেরিয়ে আসতে হয়েছে। কিন্তু সততা, নিষ্ঠা, নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে ব্যবসা করে প্রতিষ্ঠানটি দাঁড় করিয়েছেন। যমুনা গ্রুপের প্রতিটি প্রতিষ্ঠান চৎমকারভাবে চলছে।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বেড়েছে কিন্তু ভেজাল খেতে গিয়ে রোগের পরিমাণ এত বেশি হয়ে যাচ্ছে যে, আয়ুষ্কালের মধ্যে অর্ধমৃত অবস্থায় বাসায় কিংবা হসপিটালে কাটাতে হচ্ছে। যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বলেছেন, এখানে কোন ভেজাল থাকবে না। আমরা আশা করছি, এখানে কোন ভেজাল প্রসাধনী থাকবে না। মানুষ এখানে এসে হতাশ যেন না হয়। প্রতারণার শিকার যেন না হয়। এটা হলে দেশের টাকা দেশেই থাকবে। সিঙ্গাপুর কিংবা ব্যাংকক কেনাকাটার জন্য মানুষ যাবে না।

অনুষ্ঠানে যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বলেন, যমুনা ফিউচার পার্ক তৈরির কথা শুনেই মানুষ আমাকে পাগল বলতো। কারণ এটা আমারও কল্পনার বাইরে ছিল। আমি আপনাদের সহযোগিতায় সেই স্বপ্নপূরণ করেছি। এক ছাদের নিচে নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্য নিয়ে মার্কেট তৈরি করেছি।

হোলসেল ক্লাব প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি আপনাদের ওয়াদা করছি, এখানে ভেজালমুক্ত পণ্য ন্যায্য মূল্যে পাবেন। কোন প্রকার প্রতারিত হবেন না। এখানকার ব্যবসায়ীরা কোনো প্রকার ছলচাতুরী করতে পারবেন না। এখানে শপিং করে সবাই খুশি হবেন।

পাঠকের মন্তব্য