গৌরনদীতে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ, মামলা দায়ের

গৌরনদীতে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ, মামলা দায়ের

গৌরনদীতে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ, মামলা দায়ের

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বার্থী ডিগ্রি কলেজের এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এক ছাত্রী (১৭)কে অপহরণের ঘটনায় কলেজের এক শিক্ষকসহ ২ জনের নামোল্লেখ করে ৬ জনকে আসামি করে গৌরনদী থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে উপজেলার দক্ষিণ বাউরগাতি গ্রামের অপহৃতার বাবা বাদি হয়ে এ অপহরণ মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হলো- কোটালীপাড়া উপজেলার রামশীল গ্রামের বাসিন্দা বার্থী ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক ললিত কুমার চন্দ ও তার বখাটে পুত্র অনার্সের ছাত্র দিপক চন্দ (২৩) ।

মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে গৌরনদী থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মোঃ তৌহিদুজ্জামান জানান, গত এক বছর ধরে বার্থী ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক ললিত কুমার চন্দ’র বখাটে পুত্র দিপক কুমার চন্দ ওই কলেজে যাওয়া আসার পথে ওই ছাত্রীকে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করে প্রেম নিবেদনসহ কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় বখাটে দিপক নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখিয়ে অপহরণের হুমকি দেয়। বিষয়টি ছাত্রীর বাবা কলেজের গনিত শিক্ষক ললিত কুমার চন্দকে জানালে সে তার ছেলেকে ইন্দন জোগায়। গত ২৬ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টার দিকে ওই ছাত্রী বাড়ির পাশের রাস্তায় দিয়ে একই গ্রামের নিকট এক আত্মীয়র বাড়িতে যাচ্ছিল। এ সময় দিপক কুমার চন্দের নেতৃত্বে ৩/৪ জনে ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক মোটর সাইকেলে  তুলে অপহরণ করে নিয়ে যায়।  

এ ঘটনায় অপহৃতার বাবা বাদি হয়ে বাথী ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ললিত কুমার চন্দ ও তার ছেলে দিপক কুমার চন্দ’র নামোল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ৩/৪ জনকে আসামি করে গতকাল শুক্রবার রাতে থানায় একটি অপহরণ মামলা (যার নং-১৪/১৮-১০-২০১৯ইং) দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা  হলেন থানার এসআই মোঃ আনিসুজ্জামান। মামলার আসামিদের গ্রেফতার ও অপহৃতাকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে বলে এসআই ত্যেহিদুজ্জামান জানান বার্থী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ কাজী আব্দুস ছালাম জানান, তার কলেজ থেকে  ওই ছাত্রী এবার এইচএসসি পাস ও দিপক কুমার চন্দ গত বছর এইচএসসি পাস করে গেছে।

 

পাঠকের মন্তব্য