ভুয়া ডাক্তারের অস্ত্রোপচারে স্তন হারানো শেফালি এখন সুস্থ

ভুয়া ডাক্তারের অস্ত্রোপচারে স্তন হারানো শেফালি এখন সুস্থ

ভুয়া ডাক্তারের অস্ত্রোপচারে স্তন হারানো শেফালি এখন সুস্থ

নেত্রকোনার খালিয়াজুরিতে ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ার ভয় দেখিয়ে ভুয়া চিকিৎসক কর্তৃক ব্লেড দিয়ে স্তন কেটে ফেলা শেফালি বেগম (৪২) এখন অনেকটাই সুস্থ হয়ে ওঠেছেন। বুধবার বিকেলে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের চিকিৎসকরা তাকে ছাড়পত্র দিয়েছেন।

শেফালি বেগম খালিয়াজুরির পাঁচহাট গ্রামের মৃত সাদ্দাম মিয়ার স্ত্রী। ক্যানসারের ভয় দেখিয়ে মানিক তালুকদার (৩৮) নামে এক ভুয়া চিকিৎসক তার বাম স্তন ব্লেড দিয়ে কেটে ফেলে দেন। এ ঘটনা পরে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়। এরপর স্থানীয় প্রশাসন তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়। তিনি প্রায় দুই মাস ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শেফালি বেগমকে ক্যান্সারের ভয় দেখিয়ে ভুয়া চিকিৎসক মানিক তালুকদার তার বাম স্তন ব্লেড দিয়ে কেটে ফেলে দেন। শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপ হতে থাকায় গত ৯ সেপ্টম্বর তিনি খালিয়াজুরি থানায় মামলা করেন। শেফালির অপারেশন করা স্থান ফুলে পচন ধরে যাওয়াসহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। কিন্তু ওই সময় টাকার অভাবে তিনি চিকিৎসা নিতে পারেননি।

এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর উপজেলা প্রশাসন, জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন শেফালির চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ করে। এরপর তিনি দীর্ঘ প্রায় দুই মাস মমেক হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে চিকিৎসা নেয়ার পর বর্তমানে অনেকটাই সুস্থ হয়ে ওঠেন। বুধবার বিকেলে হাসপাতাল থেকে তাকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। এরপর খালিয়াজুরির ইউএনও এএইচএম আরিফুল ইসলাম তাকে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের নিয়ে আসেন।

ইউএনও এএইচএম আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘হাসপাতালে ভর্তির পর শেফালির শরীরে অস্ত্রোপচার করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার স্তনে ক্যানসারের জীবাণু নেই। তিনি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।

শেফালি বেগম বলেন, সবার সহযোগিতায় মৃত্যুর পথ থেকে ফিরে আজ আমি সুস্থ হতে পেরেছি। আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞ।

পাঠকের মন্তব্য