অভিনব কায়দায় কুমিল্লা সীমান্তে আসছে ইয়াবা-ফেনসিডিল 

অভিনব কায়দায় কুমিল্লা সীমান্তে আসছে ইয়াবা-ফেনসিডিল 

অভিনব কায়দায় কুমিল্লা সীমান্তে আসছে ইয়াবা-ফেনসিডিল 

অভিনব কায়দায় ভারত থেকে কুমিল্লা সীমান্ত দিয়ে দেশের ভেতর পাচার হয়ে আসছে ইয়াবা ও ফেনসিডিল। এর জন্য বেছে নেওয়া হচ্ছে গবাদিপশু, ফল ও সবজি। মাদক চোরাচালান দমনে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ, মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, পুলিশ ও র‌্যাবসহ বিভিন্ন সংস্থা কাজ করলেও তা নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। মূলত নতুন নতুন কৌশলের কাছে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে সংস্থাগুলো।

বার্তা সংস্থা ইউএনবির এক প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, সীমান্তবর্তী বিভিন্ন জেলার মতো কুমিল্লা সীমান্ত দিয়েও অপ্রতিরোধ্য গতিতে দেশে ঢুকছে বিপুল পরিমাণ মাদক।

ভারত থেকে রাতে আসা গরুর পেটের সঙ্গে বেঁধে আনা হচ্ছে গাঁজা। চোরাচালানিদের ভাষায় এটি হলো ‘ক্যাটল কেরিং’। বড় পেঁয়াজের ভেতরের অংশ ফেলে দিয়ে তার মধ্যে এবং অভিনব পন্থায় আখের ভেতরে ঢুকিয়ে আনা হচ্ছে ইয়াবা ট্যাবলেট। কনডমের মাধ্যমেও ইয়াবা মানুষের মুখ বা পায়ুপথ দিয়ে পেটে ঢুকিয়ে দেশে আনা হচ্ছে।

এ ছাড়া কুমিল্লা সীমান্ত দিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই নানা ধরনের মৌসুমি ফল তরমুজ, কাঁঠাল, লাউ, কুমড়ার ভেতর ঢুকিয়ে ভারত থেকে আনা হচ্ছে ফেনসিডিল, ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য। ছোট-বড় নানা যানবাহনে করেও বিভিন্ন কৌশলে ভারত থেকে মাদক আসছে। যা পরবর্তীতে ছড়িয়ে পড়ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে।

এই সীমান্ত দিয়ে আসা মাদকদ্রব্যের মধ্যে আরও রয়েছে- হেরোইন, বিয়ার, বিভিন্ন ধরনের মদ, রিকোডেক্স সিরাপ, সেনেগ্রাসহ নানা প্রকার মাদক ও যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট এবং বিভিন্ন ধরনের নেশা জাতীয় ইনজেকশন।

এ বিষয়ে কুমিল্লার মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোহাম্মদ মাঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, “কিছুদিন আগেও ইয়াবা ট্যাবলেট মিয়ানমার থেকে কক্সবাজার হয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার হতো। বর্তমানে মিয়ানমার থেকে সরাসরি ভারতের ত্রিপুরা সীমান্ত দিয়ে কুমিল্লায় ঢুকছে।”

প্রতিদিনই পরিবর্তিত হচ্ছে মাদক পাচারের ধরন। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), র‌্যাব, পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থার হাতে হরহামেশা মাদকের চালান ধরা পড়লেও, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে মূল হোতারা। আর মাদকসহ যারা ধরা পড়ছে, তাদের অধিকাংশই বহনকারী।

পাঠকের মন্তব্য