আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের 

আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের 

আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের 

বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ রিফাত (রিফাত শরীফ) হত্যা মামলায় সাক্ষীকে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগে নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

বুধবার  দুপুর দেড়টার দিকে বরগুনা জেলা দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর ভুবন চন্দ্র হাওলাদার মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করেন। এর আগে ১ জানুয়ারি মিন্নিসহ ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন আদালত।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, তিনটি মোটরসাইকেলে পাঁচ যুবকসহ আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি শনিবার বিকেল আনুমানিক ৪টার সময় মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী জাকারিয়া বাবু ও মো. হারুনের বাড়িতে গিয়ে তাদের সাক্ষ্য না দিতে ভয়ভীতি দেখান। মিন্নি সাক্ষীদের এ সময় বলেন, জাকারিয়া বাবু ও হারুণ তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিলে রিফাত শরীফের মতো পরিণতি হবে বলেও হুমকি দেন। তাই মিন্নি বাইরে থাকলে মামলা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত হতে পারে বলে তার জামিন প্রত্যাহারের আবেদন করা হয়েছে।

পাবলিক প্রসিকিউটর ভুবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, মিন্নি জামিনের শর্ত ভঙ্গ করেছেন। শনিবার বিকেল চারটার দিকে  জামিনে থাকা আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ৬ নম্বর সাক্ষী জাকারিয়া বাবু ও ৭ নম্বর সাক্ষী হারুণ মৃধার বাড়িতে তিনটি মোটরসাইকেলযোগে পাঁচজন লোক নিয়ে উপস্থিত হন। এ সময় তারা হারুন ও বাবুকে সাক্ষ্য দেওয়া হতে থেকে বিরত থাকতে বলেন। তারা সাক্ষী দিলে রিফাতের মতো পরিণতি হবে বলে হুমকি দেন।

আদালত মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন গ্রহণ করে বৃহস্পতিবার এ ব্যাপারে আদালত আদেশ দেবেন বলেও তিনি জানান।

জামিন বাতিলের আবেদন প্রসঙ্গে মিন্নির পক্ষের আইনজীবী মাহবুবুল বারি আসলাম বলেন, ‘এটা হাস্যকর ও কাল্পনিক গল্পের মতো। আমরা আদালতের কাছে মিন্নির জামিনে থাকার বাস্তবতা তুলে ধরেছি। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মেনেই মিন্নির বাবার জিম্মায় বাড়িতে অবস্থান করছেন। তিনি বাড়ি থেকে তো দূরে থাক ঘর থেকেও বাইরে বের হন না। আমরা মহামান্য আদালতের কাছে বিষয়টি তুলে ধরেছি’।

তিনি আরো বলেন, ‘আদালতে দরখাস্ত দিয়ে জানিয়েছি ১ জানুয়ারি মিন্নির বিরুদ্ধে রিফাত শরীফ হত্যার যে অভিযোগ গঠন করা হয় তার বিরুদ্ধে আমরা মহামান্য হাইকোর্টে রিভিশন দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছি।’

১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুই ভাগে বিভক্ত অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেয় পুলিশ। একই সঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

গত ২৬ জুন সকাল সোয়া ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে গুরুতর আহত রিফাতকে ওই দিনই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকেলে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক। এ ছাড়া নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি ও প্রিন্স মোল্লা জামিনে রয়েছেন।

পাঠকের মন্তব্য