পিছন থেকে ছাত্রীর উপর হামলা চালিয়ে ধর্ষণ ! 

পিছন থেকে ছাত্রীর উপর হামলা চালিয়ে ধর্ষণ ! 

পিছন থেকে ছাত্রীর উপর হামলা চালিয়ে ধর্ষণ ! 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণকাণ্ডে ধৃত ব্যক্তি মজনু সেদিনের ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন বলে দাবি তুললল ব়্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন। আধিকারিকরা জানিয়েছন, ধৃত মজনুকে তারা জিজ্ঞাসাবাদ করায় সে ওইদিনের ঘটনার বিবরণ দিয়েছে। অপরাধের কথা স্বীকার করে নিয়েছে ধৃত। তার বয়ান অনুযায়ী, গত ৫ তারিখ কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা করিয়ে ফিরছিলেন। পিঠে ব্যাগ নিয়ে বিমানবন্দর লাগোয়া রাস্তা দিয়ে হাঁটার সময়েই মজনু তাঁকে পিছন থেকে আক্রমণ করে। এরপর টেনে ঝোপের দিকে নিয়ে যায়। ধর্ষণের পর তাকে কিল, ঘুষি, চড় মারতে থাকে এবং গলা টিপে হত্যারও হুমকি দেয়। ছাত্রীটি অচৈতন্য হয়ে পড়েন। পরে অবশ্য জ্ঞান ফিরলে, মজনুর কবল থেকে নিজেকে বাঁচাতে সক্ষম হন।

ব়্যাবের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, ওইদিন ধর্ষণের পর আত্মরক্ষার্থে ছাত্রীটি মাঝরাস্তায় ছুটে চলে যান। কিন্তু রাস্তার মাঝে ডিভাইডার থাকায় পেরিয়ে যেতে পারেননি। উড়ালপুল দিয়ে রাস্তা পেরিয়ে বিপরীত দিক থেকে রিকশা নিয়ে পালিয়ে যান। তাঁর মোবাইল ফোনটি বিক্রি করে দেয় ধৃত মজনু। পররে সে এলাকায় ফিরে বনানী স্টেশন চত্বরে ছিল। মঙ্গলবার ঢাকার আদালতে চার্জশিট পেশ করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় মজনুকে তদন্তকারী সংস্থা ডিবির হাতে তুলে দিয়েছেন র‍্যাব আধিকারিকরা। তদন্ত বিভাগের উত্তর শাখার উপকমিশনার মশিউর রহমান জানিয়েছেন, মজনুর বয়ানের সত্যতা যাচাই করতে বেশ কিছু পরীক্ষানিরীক্ষার প্রয়োজন। প্রয়োজনে তাকে শনাক্তকরণের জন্য টিআই প্যারেড করানো হবে।

এই মামলায় ২৮ জানুয়ারির মধ্যে এই ঘটনার রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট। পুলিশের মহাপরিদর্শক মহম্মদ জাবেদ পাটোয়ারি জানান, এই মুহূর্তে পুলিশের অগ্রাধিকারের তালিকায় সবার উপরে রয়েছে ধর্ষণের এই মামলাটি। নির্যাতিত ছাত্রী বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে চিকিৎসাধীন। এই ধর্ষণের ঘটনাকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় উত্তাল হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস। ধর্ষকের চরম শাস্তির দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে বিক্ষোভ দেখায় বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন। দোষীদের গ্রেপ্তার ও কড়া শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলেও হুমকি দেয়। ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল ও রাজু ভাস্কর্যে প্রতিবাদী গান-কবিতায় সমাবেশ এবং মোমবাতি মিছিল নিয়ে শহিদ মিনারে অবস্থান করতে দেখা যায় আন্দোলনকারীদের।

পাঠকের মন্তব্য