সাঈদ খোকনের হাতে (সদস্য পদ) চিঠি তুলে দিলেন কাদের 

সাঈদ খোকনের হাতে (সদস্য পদ) চিঠি তুলে দিলেন কাদের 

সাঈদ খোকনের হাতে (সদস্য পদ) চিঠি তুলে দিলেন কাদের 

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাইদ খোকনের হাতে চিঠি তুলে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার (১৩ জানুয়ারি) আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার চিঠি গ্রহণ করেন মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। এর আগে রোববার (১২ জানুয়ারি) দলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা গত ২০ ও ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় কাউন্সিল কর্তৃক প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ মনোনয়ন প্রদান করেছেন।

মোহাম্মদ সাঈদ খোকন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা আওয়ামী লীগের সদ্যবিদায়ী নির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ দুই সিটি করপোরেশনে ভাগ হওয়ার পর ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল প্রথম নির্বাচনে জিতে দক্ষিণ সিটির মেয়র হন সাঈদ খোকন।

অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র মোহাম্মদ হানিফের ছেলে খোকন এবারও মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তবে তার জায়গায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ মনির ছেলে শেখ ফজলে নূর তাপসকে প্রার্থী করেছে আওয়ামী লীগ।

গত ২৬ ডিসেম্বর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করতে এসে কেঁদে ফেলেন খোকন। তিনি বলেছিলেন, রাজনীতিতে ‘কঠিন সময়’ পার করছেন। তবে তাপসকে মেয়র পদে মনোনয়ন দেওয়ার পর খোকন বলেন, নেত্রী (শেখ হাসিনা) আমার জন্য যেটা ভালো মনে করেছেন সেটা করেছেন, আলহামদুলিল্লাহ।

তখনই ধারণা করা হচ্ছিল, সাঈদ খোকনকে ‘সান্ত্বনা পুরস্কার’ হিসেবে কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান দেয়া হতে পারে।

পুরান ঢাকার ছেলে খোকন এর আগে আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা কমিটির সদস্য ছিলেন। তার বাবা হানিফ ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। সাঈদ খোকনকে নিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সংখ্যা দাঁড়ালো ২৬ জনে।

এর দুদিন আগে দলের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ এইচ এন আশিকুর রহমানকে দ্বিতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ করার কথা জানানো হয়েছে। ৮১ সদস্য বিশিষ্ট আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে ধর্ম সম্পাদক, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক এবং দুই কার্যনির্বাহী সদস্য পদ এখনও ফাঁকা রয়েছে।

 

পাঠকের মন্তব্য