বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে আছড়ে পড়লো বিধ্বংসী রকেট 

বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে আছড়ে পড়লো বিধ্বংসী রকেট 

বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে আছড়ে পড়লো বিধ্বংসী রকেট 

কয়েকদিন শান্ত থাকার পর ফের উত্তেজনার পারদ চড়ল মধ্যপ্রাচ্যে। মঙ্গলবার সাতসকালে ইরাকের রাজধানী বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসের উপর আছড়ে পড়ল তিনটি রকেট। ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। বাগদাদের কড়া নিরাপত্তায় মোড়া গ্রিন জোনে এই দূতাবাসে হামলার ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে পেন্টাগন। তবে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের রিপোর্টি অনুযায়ী, এই হামলায় হতাহতের খবর নেই। তবে এ কাজ ইরানের বলেই নিশ্চিত আমেরিকা।

মধ্য বাগদাদের এই গ্রিন জোনকে কূটনৈতিক হাবও বলা হয়ে থাকে। বিভিন্ন দেশের দূতাবাস, সরকারি দপ্তর অবস্থিত এই গ্রিন জোনে। তার উপর মার্কিন ড্রোন হানায় ইরানি জেনারেল কাশেম সোলেমানির মৃত্যুর পর এই অঞ্চলের নিরাপত্তা আরও জোরদার করা হয়েছে। মাঝে কিছুদিন পরিস্থিতি শান্ত ছিল। আমেরিকা-ইরানের ঠান্ডা লড়াইয়ের মধ্যেই এদিন মার্কিন দূতাবাসে রকেট হামলার ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনার পারদ চড়েছে।

চলতি বছরের শুরুতে বাগদাদ বিমানবন্দরের বাইরে মার্কিন ড্রোন হানায় নিহত হন ইরানের রেভোলিউশনারি গার্ডের কাডস ফোর্সের জেনারেল কাশেম সোলেমানির মৃত্যুর পর থেকেই উপসাগরীয় অঞ্চলে আমেরিকা-ইরনের ঠান্ডা লড়াই শুরু হয়েছে। সোলেমানির মৃত্যুর বদলা নিতে প্রত্যাঘাত করতে ছাড়েনি ইসলামিক প্রজাতন্ত্র ইরান। ইরাকের আইন আল-আসাদ-সহ দুটি মার্কিন বায়ুসেনা ঘাঁটিতে একাধিক মিসাইল হামলা চালায় তেহরান। এই ঘটনাকে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে সব ঠিক আছে লিখে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প টুইট করেন।

তবে ইরানের দাবি ছিল, এই হামলায় অন্তত ৮০ জন মার্কিন সেনা নিহত হয়েছেন। পরে জানা গিয়েছে, ১১ জন সেনা আহত হয়েছিল ইরানের প্রত্যাঘাতে। মঙ্গলবারের রকেট হামলায় অবশ্য কোনও হতাহতের খবর নেই। কিন্তু কড়া নিরাপত্তায় মোড়া বাগদাদের গ্রিন জোনে রকেট হামলায় সিঁদুরে মেঘ দেখছে পেন্টাগন। বেগতিক দেখে মধ্যপ্রাচ্যে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত দূতাবাসগুলিতে নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য পদক্ষেপ করছে ট্রাম্প প্রশাসন।

পাঠকের মন্তব্য