জীবনের জন্যে একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না ?

জীবনের জন্যে একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না ?

জীবনের জন্যে একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না ?

মীম ৭ এবং আশামনি ৫ । দুটি অবুঝ শিশুর সংগ্রামী মা পলি আক্তার। সৃষ্টিকর্তার দয়া এবং পলির দীর্ঘ প্রচেষ্টায় আজও বেঁচে আছে তার স্বামী মো: সফিকুল ইসলাম। সফিকুল দৈনিক হাজিরা ভিত্তিক ৫৯০ টাকা মজুরীর একজন শ্রমিক। ৩৫ বছরের তরুন শফিকুলের দু’টি কিডনিই নষ্ট। দীর্ঘ ডায়লসিস এবং চিকিৎসায় তার জায়গা জমি ঘর বাড়ি সবই শেষ। আবু ইসহাকের ‘সূর্য দীঘল বাড়ী’র স্বামীহারা জয়গুন দু’তিনটি সন্তান নিয়ে যেমন দরিদ্র জীবনের যুদ্ধে প্রাণপণ লড়েছে সফিকুলের স্ত্রী পলিও সেভাবেই দু’টি শিশু সন্তান এবং রোগাক্রান্ত স্বামীকে নিয়ে চরম দরিদ্রতার সাথে লড়াই করে চলছেন। তাঁর আত্মপ্রত্যয় এবং রোগগ্রস্ত স্বামীর আদরের দুই কন্যার অবুঝ মমতা ছাড়া কিছুই নাই। তবে হাল ছাড়বেন না তিনি।

স্বামীকে বাঁচিয়ে রাখার শেষ চেষ্টা করে যাবে পলি।নিজের কিডনি দানের মাধ্যমে সে তার ভালবাসার সর্বোচ্চ মূল্য দিবেন। ইতোমধ্যে আইন এবং ডাক্তারী পরীক্ষা নীরিক্ষার সবকিছুই শেষ। পলি এখন তার প্রিয় স্বামীকে একটি কিডনি প্রদানের অধীর প্রতীক্ষায় রয়েছে।তবে তাঁর বড় বাঁধা হয়ে দাড়িয়েছে নির্মম অর্থ সংকট। আত্মীয়স্বজন, স্বামীর সহকর্মীদের সহানুভূতির দানে সে ৫ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করেছেন। কিন্তু তাঁর প্রয়োজন আরো ১০ লক্ষ টাকা।

আমরা নিত্যদিন কত অপ্রয়োজনীয় খরচই না করি । হাজার হাজার টাকা খরচ করে সন্তানের জন্মদিন পালন করি , বন্ধু বান্ধব আত্মীয়স্বজনকে খুশী রাখি। ঐসব খরচ থেকে কিছু টাকা এ দুটি অবুঝ শিশুর বাবাকে বেঁচে থাকার জন্য দিতে পারি না ? সৃষ্টিকর্তাও এতে আপনার প্রতি খুশী হবেন । মহান সৃষ্টি কর্তা নিশ্চয়ই প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেন না। অবশ্যই তিনি আমাদেরকে, আমাদের সন্তানদেরকেও সুস্থ সুন্দর মঙ্গলালোকে বাঁচিয়ে রাখবেন। যদি আপনি ন্যূনতম দয়া করেন, সে সামান্য দানও হবে অতিমহান। দয়া করে সাহায্য করুন .......॥

সফিকুল ইসলাম
সঞ্চয়ী হিসাব নং ১৯৭৬৯
ইসলামী ব্যংক  উত্তরা শাখা।ঢাকা।

(সফিকুল ইসলাম, সি নং ৩২৭১, এয়ারক্রাফ্ট টেকনিক্যাল হেলপার, প্রকৌশল বিভাগ, বিমান।)

তথ্যসুত্র : Mosikur Rahman

পাঠকের মন্তব্য