চাঞ্চল্যকর পাভেল হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন

চাঞ্চল্যকর পাভেল হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন

চাঞ্চল্যকর পাভেল হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন

খিলক্ষেতে চাঞ্চল্যকর পাভেল হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা উত্তর বিভাগ। হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত হলেন, মোঃ আল রাকিব মুন্সি।

গোয়েন্দা-উত্তর বিভাগের বিমান বন্দর জোনাল টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ কায়সার রিজভী কোরায়েশী ডিএমপি নিউজকে জানান, মঙ্গলবার (৩ মার্চ) রাত ০৯.৩০ টায় খিলক্ষেত থানার খাঁ পাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তিনি বলেন, পাভেল (২২) ও মোঃ আল রাকিব মুন্সি দুজনই রাজধানীর খিলক্ষেতের কাজী ফকির উদ্দিন রোডের খাঁ পাড়া এলাকায় বসবাস করতেন। তুচ্ছ কারণে তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকত। রাকিবের ছোট বোনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে পাভেল। যেটা রাকিব মন থেকে মেনে নিতে পারেনি। বিষয়টি নিয়ে পাভেলের সাথে রাকিবের মারামারি হয়। এতে পাভেলের মাথা ফেটে যায়। যা একপর্যায়ে চরম আকার ধারন করে। পাভেল রাকিবকে ক্রমাগত হত্যার হুমকি দিতে থাকে। পাভেলের হুমকিতে রাকিব আতঙ্কিত থাকত। 

রাকিবের মনে সবসময় একটা শঙ্কা কাজ করত যে, কখন পাভেল তার বোন ও তার ক্ষতি করে বসে। রাকিব মনে মনে পাভেলকে হত্যার ছক আঁটে। পরিকল্পনা অনুযায়ি পাভেলের সাথে প্রথমে ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলে রাকিব। এরপর সময় সুযোগ বুঝে গত ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ০৯.৩০ টায়  পাভেলকে নিয়ে বিমান বন্দর থানার কাওলা সিভিল এভিয়েশনের কবরস্থানের দক্ষিণ পাশে নির্জন জায়গায় যায় রাকিব। সেখানে রাকিবের কাছে থাকা ছুরি দিয়ে পাভেলকে হত্যা করেন।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা আরো বলেন, এ ঘটনায় বিমান বন্দর থানায় গত ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ একটি হত্যা মামলা রুজু হয়। মামলাটির তদন্তভার আসে গোয়েন্দা উওর বিভাগের কাছে। বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে অভিযুক্তের অবস্থান সনাক্ত করে খিলক্ষেত থানার খাঁ পাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি বলেন, রাকিবকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডটি সে নিজেই সংঘটিত করেছে বলে স্বীকার করেছেন। সুত্র- ডিএমপি নিউজ

পাঠকের মন্তব্য