সংসদের বিশেষ অধিবেশন বসছে ২২ ও ২৩ মার্চেই 

জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন বসছে ২২ ও ২৩ মার্চেই 

জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন বসছে ২২ ও ২৩ মার্চেই 

করোনাভাইরাস নিয়ে বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে বিদেশি অতিথিরা আসছেন না। তারপরও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে নির্ধারিত সময় ২২ ও ২৩ মার্চেই জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন বসবে।

অধিবেশনে বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবনের ওপর ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সরকার ও বিরোধীদলীয় সদস্যরা বঙ্গবন্ধুর ওপর আলোচনায় অংশ নেবেন।

জাতীয় সংসদ ভবনে বুধবার বিকালে অনুষ্ঠিত কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, আমির হোসেন আমু, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, রাশেদ খান মেনন, হাসানুল হক ইনু, অ্যাডভোকেট আনিসুল হক, গোলাম মোহাম্মদ কাদের ও নূর-এ আলম চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সূত্রমতে, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ৩ মার্চ সংসদের বিশেষ অধিবেশন আহ্বান করেছেন। এ অধিবেশনে ভাষণ দেয়ার জন্য ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি ও নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। এছাড়া বিভিন্ন দেশের স্পিকার, সংসদ সদস্য ও বিশিষ্ট অতিথিদের উপস্থিত থাকার কথা ছিল। কিন্তু দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় বিদেশি অতিথি আসছেন না। সরকার মুজিববর্ষের ১৭ মার্চের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও স্থগিত ঘোষণা করেছে।

বৈঠক শেষে কমিটির একাধিক সদস্য জানান, সংসদ অধিবেশন আহ্বান করে তা পেছানোর নজির নেই। যে কারণে বিদেশি অতিথিরা না এলেও রাষ্ট্রপতির আহ্বান অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ে ২২ মার্চ বেলা ১১টায় অধিবেশন বসবে।

অধিবেশনের আগে সকাল সাড়ে ৯টায় সংসদ সদস্যরা ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। এরপর অধিবেশনের শুরুতে বঙ্গবন্ধুর ওপর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ভাষণ দেবেন। এছাড়া কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭-এর আওতায় বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের ওপর সংসদ সদস্যরা সাধারণ আলোচনায় অংশ নেবেন। অধিবেশনের ২ দিনে ১২ ঘণ্টা আলোচনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, সংসদের বিশেষ অধিবেশনকে ঘিরে প্রস্তুতি চূড়ান্ত হয়েছে। সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় প্যান্ডেল তৈরি করা হচ্ছে। সংসদ ভবনে সাজসজ্জার কাজ চলছে। প্রকাশনার কাজও শেষ পর্যায়ে। অধিবেশনের বক্তাদের তালিকা প্রণয়নের কাজ শুরু হয়েছে। অধিবেশনে উপস্থিত থাকার জন্য জাতীয় সংসদ থেকে সব সদস্যের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য