কুতুবদিয়ায় তিনটি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন প্রস্তুত 

কুতুবদিয়ায় তিনটি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন প্রস্তুত 

কুতুবদিয়ায় তিনটি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন প্রস্তুত 

করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে কুতুবদিয়া উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের যৌথ উদ্যোগে তিনটি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন প্রস্তুত করা হয়েছে। আজ ২৫ মার্চ (বুধবার) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউল হক মীর, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ হেলাল চৌধুরী ও উপজেলা স্বাস্থ্য পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী কোয়ারান্টাইন সেন্টার গুলো প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। কোয়ারান্টাইনগুলো হলো- কুতুবদিয়া বড়ঘোপ সমুদ্র সৈকতের পাশে হোটেল সমুদ্র বিলাস, ডাকবাংলো ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এগুলোকে উপজেলার প্রথম প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন ঘোষণা করা হয়েছে। বিষয়টি কুতুবদিয়ার ইউএনও মোঃ জিয়াউল হক মীর নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানান, এ ৩টি  কোয়ারান্টাইন দিয়ে দুর্যোগ কালীন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন হিসাবে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। গত ২২ মার্চ কক্সবাজার জেলা প্রশাসন প্রতিটি উপজেলায় কমপক্ষে ১০০ বেডের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন তৈরী করতে জরুরী পত্র দেওয়ায়  পর হোটেল সমুদ্র বিলাস, ডাকবাংলো ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন ঘোষণা করা হয়েছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) মোহাম্মদ হেলাল চৌধুরী জানান, প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন তিনটি কমপক্ষে ১০০ জনের বেড প্রস্তুত করা হয়েছে । তিনি ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট সকলকে এ বিষয়ে সহযোগিতা করতে অনুরোধ জানিয়েছেন বলে জানান। ৩ টি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইন সেন্টার হিসাবে ইতিমধ্যে সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে।

তবে এখনও পর্যন্ত কুতুবদিয়ায়  কোনো করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্তের খবর পাওয়া যায়নি। এরইমধ্যে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় সব ধরনের জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

এব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য পঃপঃ কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য কুতুবদিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আলাদা ইউনিট খোলা হয়েছে। এছাড়া ২৪ ঘন্টা সেবা দেয়ার জন্য গঠন করা হয়েছে মেডিকেল টিম। আগাম প্রস্তুতি হিসেবে হাসপাতালে আইসোলেশনের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় সম্ভাব্য সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা সাপক্ষে ও পারস্পরিক সমন্বয়ের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের জন্য আগাম চিকিৎসা ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 

পাঠকের মন্তব্য