সংক্রমিত এলাকাগুলো লকডাউনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সংক্রমিত এলাকাগুলো লকডাউনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সংক্রমিত এলাকাগুলো লকডাউনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

যে সব জায়গায় করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছে, সেই এলাকা ও পার্শবর্তী এলাকা পুরোপুরি লকডাউনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর; মন্ত্রীসভায় এ নির্দেশনা দেন তিনি।

পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত অতি জরুরি কারণ ছাড়া ঢাকার বাইরে কেউ যাবে না, আসবেও না- দেয়া হয় এমন নির্দেশনাও।

সভায়, পিপিই, মাস্ক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়া প্রতিটি গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠান বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কারাগারে দীর্ঘদিন জেল খাটছেন ও লঘু অপরাধে সাজাপ্রাপ্তদের মুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনা সংক্রমণের পর থেকে মোট ১২ জনের মৃত্যু হলো। এছাড়া, গত গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আরও ৩৫ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১২৩ জন।

সোমবার (৬ই এপ্রিল) দুপুরে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ সকল তথ্য জানানো হয়। এসময় আইইডিসিআর এর পরিচালক অধ্যাপক ডাক্তার মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ৪৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যা থেকে এই নতুন ৩৫ জন আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হন। গত ৮ই মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর সংক্রমণ দিন দিন বাড়ছে।

প্রথমে ২৬শে মার্চ থেকে ৪ঠা এপ্রিল পর্যন্ত করোনার বিস্তার ঠেকাতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। পরে এই ছুটি ১১ই এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়। সর্বশেষ ছুটি বাড়ানো হয়েছে ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত। রাজধানী ঢাকায় প্রবেশ ও বহিরাগমন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অফিস-আদালত থেকে শুরু করে গণপরিবহন সবই বন্ধ রয়েছে। তবে কাঁচাবাজার, খাবার, ওষুধের দোকান, হাসপাতালসহ জরুরি সেবা এই বন্ধের বাইরে রয়েছে। আর, সামাজিক দূরত্ব ও হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে সক্রিয় রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পাঠকের মন্তব্য