শুধু চিকিৎসক নয় স্বেচ্ছাসেবক, পুলিশ ও সেনাদের পিপিই জরুরী

শুধু চিকিৎসক নয় স্বেচ্ছাসেবক, পুলিশ ও সেনাদেরও পিপিই জরুরী   

শুধু চিকিৎসক নয় স্বেচ্ছাসেবক, পুলিশ ও সেনাদেরও পিপিই জরুরী   

এটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ কোন বন্যা নয়, এটি কোন ঝড় সাইক্লোন, হারিকেন ও টাইফুন নয়। মনে রাখতে হবে, এটি মরণঘাতী ভাইরাস (covid 19) !! আর্ত মানবতার সেবায় স্বেচ্ছাসেবী থেকে শুরু করে সকল চিকিৎসক, পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর যারা মানবতার স্বার্থে কিংবা দেশের স্বার্থে খাদ্য সহায়তার জন্য যারা হাত বাড়িয়েছেন তাদের জন্যেও পারসোনাল প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট বা ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) ব্যবহার আবশ্যক। নয়তো ভয়ংকর বিপদ ডেকে আনতে পারে আগামীর দিনগুলোর জন্য।

পিপিই সঙ্কট থাকলে দ্রুত সময়ের মধ্যে সেটার সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। পিপিই মূলত ব্যবহার করেন ওইসব রোগের চিকিৎসার সঙ্গে জড়িতরা, যেখানে সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। কিন্তু আমি মনে করি, করোনা ভাইরাস শুধু চিকিৎসকদের জন্যেই ঝুঁকি নয় বরং যারা সাহায্যে এগিয়ে আসছেন তাঁরাও চরম ঝুঁকিতে থাকবেন সেটাই স্বাভাবিক। কোনো ব্যক্তি যদি এমন কোনো জায়গায় কাজ করেন যেখানে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা আছে, তাহলে তার জন্য পিপিই আবশ্যক। কারণ এক্ষেত্রে শুধু তিনিই সংক্রমিত হবেন না, বরং তার মাধ্যমে আরো অনেকেই সংক্রমিত হতে পারেন।

দেশে হুহু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা, এই অবস্থায় বুকের পাটা শক্ত ও মজবুত রাখা দায় ! এভাবে চলতে থাকলে একটি সময় ত্রাণের চাহিদা যেমন বৃদ্ধি পাবে অপরদিকে খাদ্য সঙ্কটও সৃষ্টি হতে পারে। তখন নেমে আসবে হাহাকার; আর তখন ধরে রাখা কঠিন হয়ে পড়বে দুঃস্থ ও কর্মহীন মানুষগুলোর শৃঙ্খলা। সেজন্যেই পূর্ব প্রস্তুতি জরুরি। সারা বিশ্ব আজ এই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। বাঘাবাঘা রাষ্ট্রগুলি আজ ক্লান্ত ও দিশেহারা। সুতরাং এতোটা সহজ করে নিলে চলবে না, সরকার আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে যদিও আরও ব্যাপক প্রস্তুতির জন্য পরিকল্পনা এখনি জরুরি। ব্যাপক পরিমাণ ক্ষতির মুখোমুখি যাতে না হয় বাংলাদেশ এজন্যেই অধিক সতর্কতা আমাদের জন্য খুব বেশি জরুরি।

পাঠকের মন্তব্য