বেতনের টাকায় অসহায়দের পাশে সিঙ্গাপুর ছাত্রলীগের জে.পি তালাস 

বেতনের টাকায় অসহায়দের পাশে সিঙ্গাপুর ছাত্রলীগের জে.পি তালাস 

বেতনের টাকায় অসহায়দের পাশে সিঙ্গাপুর ছাত্রলীগের জে.পি তালাস 

পৃথিবীজুড়েই এখন আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। বাংলাদেশও আজ করোনাভাইরাসের কড়াল থাবায় আক্রান্ত। সারাদেশই এখন লকডাউনের আওতায়। সরকার, প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি পর্যায়ে নিম্ন আয়ের অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়াচ্ছেন কেউ কেউ।

ঠিক এমন সময়ে মন খারাপ করার মতো খবরও আসছে গণমাধ্যমে। সরকারের দেওয়া ত্রাণের চাল চুরি করছেন জনপ্রতিনিধি নামের কিছু অমানুষ। যাদের বিবেকবোধ বলে কিছুই নেই। পৃথিবীর এখন অসুখ। আর অসুখের সময় মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়াবে দলমত নির্বিশেষে, এটাই সবার কাম্য ছিল। কিন্তু সারাদেশে কতিপয় চালচোরের খোঁজ পাওয়া গেছে। হাতেনাতে ধরাও পড়েছেন কয়েকজন।

তবে একই সঙ্গে দেশের দুঃসময়ে বীরের ভূমিকায় আবির্ভূত হয়েছেন কিছু পেশার মানুষ।

প্রশাসন কিংবা বিভিন্ন ফাউন্ডেশন অথবা ব্যক্তিগত অর্থায়নে, অনেকেই নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষের পাশে এগিয়ে আসছেন। তবে এমন সব পরিস্থিতিতে অন্যান্যদের মতো এবার পাশে দাঁড়িয়েছেন সিঙ্গাপুর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জে.পি তালাস।

তিনি করোনার এমন পরিস্থিতিতে অনেক দিন ধরেই সিঙ্গাপুর থেকে দেশের কথা ভাবতেন। সাধারণ মানুষের কথা ভাবতেন। সকল নিম্ন আয়ের শ্রেনী পেশার মানুষের কথা ভাবতেন। আপনার কথা ভাবতেন।

তিনি ভাবতেন বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে এমন দূর্যোগের কথা। কিভাবে দরিদ্র অসহায় ও কর্মহীন মানুষকে সহযোগিতা করা যায়। আর তাই তিনি তার উদ্যোগে নিজ অর্থায়নের কথা ভেবেই এমন সহযোগিতার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি ইতোমধ্যেই তার সিঙ্গাপুর আয়ের এর এক মাসের বেতন এর টাকা, নিন্ম আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ ও অসহায়দের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় ত্রান সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করেন। এবং এই দূর্যোগের সময় সকলকেই এগিয়ে আসার অহ্বান জানান।

তবে তিনি ত্রান বিতরণে কোন প্রকার ছবি/ভিডিও না করায়, ব্যক্তিগত ফেইসবুক একাউন্টে জানান, বিঃদ্রঃ নিন্মে ব্যক্তিগত ফেইসবুক একাউন্ট থেকে হুবহু তুলে ধরা হলোঃ ব্যক্তিগত অর্থায়নে অসহায় পরিবার কে ত্রান সামগ্রী উপহার দিলাম..বিঃ দ্রঃ–কোন ছবি তুলি নাই ভিডিও করি নাই…আপনারা ও সামর্থ্য অনুযায়ী অসহায়দের পাশে দাড়ান।

জে.পি তালাস তিনি আরো বলেন, “এই জাতীয় দুর্যোগের সময়ে আমরা আমাদের প্রত্যেকের যায়গা থেকে একটু একটু করে এইভাবে এগিয়ে আসলে, সমাজে সকলের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে,গঠিত হবে একটি মানবিক সমাজ ব্যবস্থা।

পাঠকের মন্তব্য