মহামারি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে

মহামারি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে

মহামারি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে

নভেল করোনা ভাইরাসের তাণ্ডব আজ বিশ্বজুড়ে।ইতিমধ্যে লক্ষ মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় পুরো বিশ্ব আজ ঐক্যবদ্ধ।ডাক্তার নার্স স্বেচ্ছাসেবী সকলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়ছে ভাইরাসের বিরুদ্ধে। করোনা ভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ পাওয়া যায় চীনের উহান শহরে। সংক্রমণ দ্রুত বিস্তারের কারণে ১ কোটি ১০লাখ লোকের শহরকে অবরুদ্ধ করা হয়েছিল অনির্দিষ্ট কালের জন্য। লোকজনকে ঘরবন্দি বা কোয়ারান্টিনে থাকতে হবে দিনের পর দিন তা কি করে সম্ভব! পুরো বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়ে সেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছে চীন। এটা মূলত সম্ভব হয়েছে উহানের মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত লকডাউন মানার মাধ্যমে।চীন আপাতত করোনাভাইরাস নামের সংক্রমণ ব্যাধি কে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ করতে পেরেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের মতো একটি প্রভাবশালী দেশকে কাঁপিয়ে দিচ্ছে কোভিড-১৯।বিশ্বের সর্বোচ্চ প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। প্রাণহানি যেন না হয় সেজন্য চিকিৎসক ও নার্স দিনরাত চেষ্টা করে যাচ্ছে।করোনা মোকাবেলায় পুরো যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে চলছে লকডাউন। সাধারণ মানুষ সরকারের ডাকে সাড়া দিয়ে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না। ইতালিতে এখনো প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। ইতালির মানুষ সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে করোনা মোকাবেলায়। সম্প্রতি ইতালির চিকিৎসকদের একটি মন্তব্য পুরো জাতিকে যুগিয়েছে অসীম সাহস। চিকিৎসকরা বলেছেন, যদি তাদের দেশে একজন চিকিৎসাকর্মীও জীবিত থাকে তাহলে সেও সেবা দিয়ে যাবেন করোনা আক্রান্ত রোগীকে।

বাংলাদেশ হলো বীরের জাতি। বাংলাদেশের রয়েছে সংগ্রামের ইতিহাস। এদেশে রয়েছে একুশে ফেব্রুয়ারি, গণঅভ্যুত্থান, স্বাধীনতা ও নব্বইয়ের মত গৌরবময় ইতিহাস।যেকোনো দুর্যোগে এ জাতি মোকাবেলা করেছে সম্মিলিতভাবে।বাংলাদেশ আঘাত হেনেছে মহামারী করোনাভাইরাস। পুরো দেশে চলছে লকডাউন। কর্মহীন হয়ে পড়েছে অনেক মানুষ। অর্ধাহারে-অনাহারে জীবন কাটছে অনেকের। সমাজের বিত্তবানরাও এগিয়ে এসেছেন অসহায় মানুষের পাশে। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থার মাধ্যমে বিতরণ করা হচ্ছে ত্রাণ। পুরো জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায়।

কনিক মোদের জীবন ঘর কিছের এত অন্যায় ? বিভেদ ভূলে ঐক্যর পথে এগিয়ে চলি সবাই।

পাঠকের মন্তব্য