লকডাউনের নিয়ম লঙ্ঘনে জরিমানা গুনতে হলো অভিনেত্রীকে 

লকডাউনের নিয়ম লঙ্ঘনে জরিমানা গুনতে হলো অভিনেত্রীকে 

লকডাউনের নিয়ম লঙ্ঘনে জরিমানা গুনতে হলো অভিনেত্রীকে 

করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা এবং যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য দেশজুড়ে চলছে নানা ধরনের প্রচার। শেখ হাসিনা সরকারের পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে বিভিন্ন কর্মসূচি। ছুটির পাশাপাশি সরকারের তরফে সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বানও জানানো হয়েছে। এমনকী সন্ধ্যা ৬টার পর বাইরে বের হলেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশে।

লকডাউনের এই নির্দেশিকা যাতে লঙ্ঘিত না হয়, কড়া নজর রেখেছে দেশের পুলিশেরা। নির্ধারিত সময়ের পরে রাস্তায় বের হলেই গুনতে হবে জরিমানা। তা তিনি যেই হোন না কেন! লকডাউন যাতে যথাযথভাবে মেনে চলেন দেশের নাগরিকরা, তার জন্যে এমনই নিয়ম চালু করা হয়েছে হাসিনা সরকারের তরফে। তবে সেই নির্দেশিকা জেনেও রাস্তায় বের হয়েছিলেন ঢালিউডের এক জনপ্রিয় নায়িকা। তিনি ছাড়া পাননি। পুলিশের কাছে জরিমানা দিতে হল বাংলাদেশের জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত এই অভিনেত্রীকে।

লকডাউন অমান্য করে বাইরে বেরনোর জেরে এবার জরিমানা গুনলেন ঢালিউডে খ্যাতনামা অভিনেত্রী তমা মির্জা। সম্প্রতি, ঢাকার মৌচাক মোড়ে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই নায়িকাকে জরিমানা করা হয়েছে ঢাকা প্রশাসনের তরফে। সন্ধে ছ’টার পর তাঁকে বাড়ির বাইরে দেখা যায়। আর লকডাউনে নিয়ম লঙ্ঘন করার জন্যই তাকে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ প্রসঙ্গে তমা মির্জা বলেন, “গতকাল একটি চ্যানেলে আমার অনুষ্ঠানের রেকর্ড ছিল। সেটি শুরু হতে সময় লেগে যায়। রেকর্ড শেষ করে সন্ধে ৬টার একটু পর আমি আমার গাড়ি করে বাড়িতে ফিরছিলাম। মৌচাক মোড়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত আমার গাড়িটিকে দাঁড় করায়। তারা জানতে চাইলে, আমি আমার শুটিংয়ের কথা বলি। সঙ্গে এও বলি সন্ধ্যার পর যেহেতু আমি বাইরে, এটা আমার ভুল। আইন অমান্যের শাস্তি বা জরিমানা যা হবে আমি মেনে নেব।” তিনি আরও বলেন, “আমার গাড়িতে মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস দুটোই ছিল। আমাকে জানানো হয়, যেহেতু কাজের কারণে আমাকে বের হতে হয়েছে এবং আমি পরিস্থিতির শিকার, তাই তিনি নূন্যতম একটা জরিমানা করা হবে। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমি এককথায় তা মেনে নিয়েছি।”

উল্লেখ্য, ‘বলো না তুমি আমার’ ছবির সুবাদে বড় পর্দায় পা রাখেন তমা মির্জা। ‘ও আমার দেশের মাটি’, ‘অহংকার’, ‘চল পালাই’, ‘গেম রিটার্নস’ এবং ‘গ্রাস’-এর মতো একাধিক বাংলা ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। শাহনেওয়াজ কাকলির ‘নদীজন’ ছবিতে অনবদ্য অভিনয়ের স্বীকৃতি হিসেবে সেরা পার্শ্ব-অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান এই অভিনেত্রী।

পাঠকের মন্তব্য