আম্ফানের প্রভাবে দুর্যোগ মুহুর্তে জনগনের পাশে সংসদ সদস্য-বাবু

এমপি-আক্তারুজ্জামান বাবু

এমপি-আক্তারুজ্জামান বাবু

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাবে ১০ নং মহা বিপদ সংকেতে চলছে। মঙ্গলবার থেকে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। আজ বুধবার সকাল থেকে গুড়িগুড়ি বৃষ্টির পর বিকালে থেকে প্রবল বৃষ্টির সাথে ঝড় হাওয়া বইতে শুরু করেছে। নদ-নদীতে অ-স্বাভাবিক ভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন, পৌরমেয়র, ইউপি চেয়ারম্যানরা জনগনকে নিরাপদ দূরত্বে সাইক্লোন সেল্টার, মজবুত ভবন, স্কুল-কলেজে অবস্থান নেওয়ার জন্য মাইকিং করছেন। ধেয়ে আসা আম্ফানের মহাদূর্যোগ মুহুর্তে খুলনা-৬ (পাইকগাছা-কয়রা) এমপি-আক্তারুজ্জামান বাবু বুধবার সকালে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে নির্বাচনী এলাকা কয়রার বেদকাশি ইউপির আংটিহারা পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঝুঁকিপূর্ণ (ওয়াপদা) ভেঁড়িবাঁধ পরিদর্শন করেছেন।

তিনি অনাড়ম্বর। যে কোনো দু:সময়ে জনগণের পাশে দাঁড়ান তিনি। এবারও ব্যাত্যয় ঘটেনি। ঘূর্ণিঝড় সুপার সাইক্লোন  আম্ফান  আঘাত থেকে নিজ এলাকার মানুষকে বাঁচাতে করোনার মধ্যে নিজে শারিরীক অসুস্থতা অবস্থায় নিজের জীবনের ঝুঁঁকি নিয়ে ২০ মে বুধবার দিনভোর ঘূর্ণিঝড় আম্ফান  সম্ভাব্য আঘাত হানার বিষয়ে জনগণকে আগাম সতর্ক করতে কয়রা উপজেলার  দুর্গম, প্রত্যন্ত, উপকূলীয় ক্ষতিগ্রস্ত বেঁড়িবাঁধ গুলো পরিদর্শন করেন  এবং বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে জনগনের খোঁজ খবর নেন, সতর্ক করছেন, সাহস যোগাচ্ছেন। মানুষকে বোঝাচ্ছেন সতর্ক হলে ঝুঁকি অনেক কমে যেতে পারে।

এ বিষয়ে সাংসদ আক্তারুজ্জামান বাবু তার এলাকার জনগণের উদ্দেশে বলেন, ঘুর্ণিঝড় থেকে রক্ষার জন্য প্রতিবন্ধী-শিশু- গর্ভবতী মহিলাসহ সকলকে  জরুরি আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার অনুরোধ করছি। এ সময় কয়রা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জিএম মহসীন রেজা, ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তিনি নির্বাচনী এলাকার জনগনের জান-মালের নিরাপত্তা ও ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী ক্ষয়-ক্ষতি নিরুপনের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন।

এদিকে পাইকগাছায় উপজেলা চেয়ারম্যান গাজী মোহাম্মদ আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুলিয়া সুকায়না, সহকারী কমিশনার (ভুমি) মুহাম্মদ আরাফাতুল আলম, ওসি মোঃ এজাজ শফী, পিআইও-ইমরুল কায়েস সহ ইউপি চেয়ারম্যানগন বৃষ্টির মধ্যে মহা বিপদের সময়ে মানুষের পাশে থেকে করনীয় বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন।

ঘূর্ণিঝড় আম্ফান মোকাবেলায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নীতিশ চন্দ্র গোলদার বলেন, উপজেলার ১০টি ইউনিয়ানে ১০টি,  পৌরসভায় ১টি, ভ্রাম্যমান ৫টি মেডিকেল টিম সহ  কনট্রোল রুমে ১টি স্থায়ী মেডিকেল টিম প্রস্তুতি রয়েছে। এছাড়া সর্বক্ষণিক এ্যামবুলেন্স প্রস্তুত  রয়েছে।

পাইকগাছা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ এজাজ শফী জানান, ঘূর্ণিঝড় আম্ফান মোকাবেলায় আপদে বিপদে প্রতিটা মানুষের সাহায্যে পাশে থাকার জন্য থানা সদরসহ প্রতিটা ক্যাম্পে অফিসারসহ স্ট্যাফদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সচেতনা বৃদ্ধিতে প্রত্যেকটা এলাকা পরিদর্শন করছি এবং ঝুঁকিপূর্ণদের গাড়ীতে নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে পৌঁছায়ে দেওয়াসহ  মাইকিং হচ্ছে।

এমপি আক্তারুজ্জামান বাবু জানান, বিগত দিনে প্রত্যেকটি প্রাকৃতিক দুর্যোগে সুনামি, আইলা, সিডরে আমি পাইকগাছা-কয়ার'র মানুষের সাথে ছিলাম। আজও আমি এই সুপার সাইক্লোনে রূপ নেয়া আম্ফানের সময়ে আমার নিবার্চনী এলাকার মানুষের সঙ্গে আছি ভবিষ্যৎ থাকব। আপনারা নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্র থাকুন, সর্তক থাকুন। খাবার প্রসঙ্গে বলেন, পূর্বেই পর্যাপ্ত খাবার মজুদ করে রাখা আছে।

পাঠকের মন্তব্য