বন্ধ হয়ে গেল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনার নমুনা পরীক্ষা

বন্ধ হয়ে গেল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনার নমুনা পরীক্ষা

বন্ধ হয়ে গেল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনার নমুনা পরীক্ষা

‘আর্থিক সংকট ও নিরাপত্তাহীনতাসহ কয়েকটি কারণে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার কার্যক্রম সোমবার থেকে বন্ধ হয়ে গেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমতিতে গত ৫ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ ইন সায়েন্সেস (সিএআরএস) ভবনের ল্যাবে করোনার নমুনা পরীক্ষা শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনাভাইরাস রেসপন্স টেকনিক্যাল কমিটি।

গবেষণাগারে দুটি পিসিআর মেশিনে প্রতিদিন প্রায় চারশো’ নমুনা পরীক্ষা করা হতো।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া কিট, পার্সোনাল প্রটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থিক খরচে চলতো এই নমুনা পরীক্ষার কার্যক্রম।

আর্থিক সংকট, নিরাপত্তাহীনতার পাশাপাশি রবিবার থেকে সীমিত পরিসরে বিশ্ববিদ্যালয়ের দাপ্তরিক কাজ শুরু হওয়ায় নমুনা পরীক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার কথা জানায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ঢাবির করোনা রেসপন্স টেকনিক্যাল কমিটির আহ্বায়ক শরীফ আখতারুজ্জামান বলেন, ‘ল্যাব পরিচালনা করতে প্রতিমাসে প্রায় ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে, যা বহন করা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে কঠিন এবং বাড়তি চাপ।’

‘তাছাড়া যারা কাজ করছে, তাদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা, সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে না। ভলান্টিয়ারদের অন্তত কিছু প্রণোদনা দেওয়া উচিত ছিল। কিন্তু আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে বিষয়টি জানিয়েও কোনো সাড়া পাইনি’ যোগ করেন তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) নাসিমা সুলতানা বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা স্বেচ্ছায় এ দায়িত্ব নিয়েছেন। আর্থিক সহায়তার কোনো কথা ছিল না। যেসব বিশ্ববিদ্যালয় বর্তমানে করোনাভাইরাস টেস্ট করছে, তাদের কারও জন্যই সরকারের পক্ষ কোনো বরাদ্দ নেই।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন, ‘আর্থিক কারণে নয়, আমাদের আগে থেকেই কথা ছিল ৩১ মে পর্যন্ত আমরা এটা চালিয়ে যাব।’

পাঠকের মন্তব্য