পাইকগাছায় জমির বিরোধে পাল্টা-পাল্টি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

পাইকগাছায় জমির বিরোধে পাল্টা-পাল্টি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

পাইকগাছায় জমির বিরোধে পাল্টা-পাল্টি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

পাইকগাছায় জমির বিরোধে পাল্টা-পাল্টি সংবাদ সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২ জুন পৌরসভার ৫ ওয়ার্ড সরলের বাসিন্দা মেহের আলী গাজীর সংবাদ সন্মেলনের জবাবে  ৩ জুন' একই গ্রামের বাসিন্দা সুকুমার চক্রবতী পাল্টা সংবাদ সন্মেলন করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। 

বুধবার দুপুরে পাইকগাছা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিতব্য সংবাদ সন্মেলনে সুকুমার চক্রবর্তী জানিয়েছেন, পৌরসভার বয়রা মৌজায় এসএ ১২ ও ১৩ নং খতিয়ানের বিভিন্ন দাগে আমার ও শরীকগণের ৫ একর ২৪ শতক সম্পত্তি রয়েছে। কিন্তু ক্রয় সূত্রের ভিত্তিতে মেহের আলী এ সম্পত্তির কিছু অংশ গত কয়েকমাস ধরে অবৈধ ভাবে দখল চেষ্টা করলে আমি গত ২৩ মে থানায় ১০৫৩ জিডি করি। 

পুলিশ কয়েক দফা বসাবসি করলেও চুড়ান্ত সমাধান হয়নি। সাংবাদিকের দৃষ্টি আকর্ষন করে  লিখিত সংবাদ সন্মেলনে সুকুমার চক্রবতী অভিযোগ করেন আইন অমান্য করে মেহের আলী ১ জুন রাতে বহিরাগতদের নিয়ে জড়ো করে আমাদের সম্পত্তিতে ঘর তুলে দখল চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বংশের লোকজন নিয়ে পরের দিন দুপুরে ঘটনাস্থলে গেলে মেহের তার জিনিস পত্র সরিয়ে নেবার চেষ্টা করে, যার কিছু অংশ এখনো জমিতে রয়েছে। এ ঘটনা ভিন্ন খাতে নিতে যারা কেউ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলনা অথচ মেহের আলী নিজেকে আওয়ামী লীগের পরিচয় দিয়ে আমার ছেলে জেলা ছাত্র লীগের নেতা পার্থপ্রতিম চক্রবতী ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা আফি আজাদ বান্টির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নষ্ট করতে তাদের জড়িয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ সন্মেলন করেছেন। এর প্রতিবাদ করে সুকুমার চক্রবর্তীর অভিযোগ করেন, মেহের আলীর মুলত গ্রামের বাড়ী আলমতলায়। সেখানকার ইউপি সদস্য হারুন জমাদ্দারের সাথে ছাত্রলীগ নেতা বান্টি'র পারিবারিক বিরোধ রয়েছে। এ কারণে ইউপি সদস্যোর ইন্ধনে বান্টি সহ অন্যদের নামে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিয়ে মেহের আলী সংবাদ সন্মেলনে মিথ্যা অভিযোগ এনেছেন।

এদিকে মঙ্গলবারে  মেহের আলী গাজী লিখিত বক্তব্যে সংবাদ সন্মেলন উল্লেখ করেন, সরল মৌজায় এসএ ১২ খতিয়ানের ৪৯ দাগে -০৮৫০ একর সম্পত্তি ক্রয় করি এবং একই মালিকের কাছ থেকে  একই দাগে আরো ৬ জন এ সম্পত্তি ক্রয় করেন। মেহের আলী অভিযোগ করেন ঘটনার দিন ১ জুন দুপুরে  সুকুমার চক্রবর্তীর লোকজন মারপিট করে স্থাপনা ভাংচুর করেন। এ ঘটনায়  মেহের আলী গাজী থানায় জিডি করেন। যার নম্বর ৭৯।  প্রতিপক্ষ সুকুমার চক্রবর্তী তার ছেলে পার্থপ্রতিম চক্রবর্তী ও আফি আজাদ বান্টিকে জড়িয়ে সংবাদ সন্মেলন করেছেন।

পাঠকের মন্তব্য