গাইবান্ধায় ধর্ষণকারী শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

গাইবান্ধায় ধর্ষণকারী শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

গাইবান্ধায় ধর্ষণকারী শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

গৃহকর্মী ও আপন চাচাতো ভাতিজি কে ধর্ষনকারী গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইউনুস আলীকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমুলক  শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

বুধবার (২৪জুন) সকাল ১১ টায় শহরের ডি বি রোড, আসাদুজ্জামান মার্কেটের সামনে ভুক্তভোগী ও সচেতন এলাকাবাসী (নওহাটী, তারাপুর সুন্দরগঞ্জ) এর উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মানববন্ধনে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন ইসরাত জাহান লিপি,আহবায়ক মহিলা ফোরাম গাইবান্ধা জেলা, নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী সাধারণ সম্পাদক গাইবান্ধা জেলা, নির্যাতিতার বাবা, মা -দাদী,আত্মীয় আবুল কাশেম, সচেতন এলাকাবাসীর পক্ষে ইউনুস আলী, রুমন বসুনিয়া, সজিব প্রমুখ।

এসময় বক্তাগন বলেন একজন শিক্ষক তিনি মানুষ গড়ার কারিগর আজ তার কাছে একজন কিশোরীও নিরাপদ নয়।তাহলে তার কাছে ছাত্রীদের নিরাপত্তা কোথায় ? আজকে আমাদের সমাজে বিচার হীনতার কারনে খুন, ধর্ষন হচ্ছে।তাই অবিলম্বে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে ধর্ষনকারী শিক্ষক ইউনুস আলীকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি এবং সেই সাথে গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার এর দাবী জানান।

উল্লেখ্য গাইবান্ধা জেলা শহরের থানাপাড়ায় কিশোরী গৃহকর্মীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগে গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি লম্পট শিক্ষক ইউনুস আলীর বিরুদ্ধে গাইবান্ধা সদর থানায় ৯ জুন মঙ্গলবার রাতে একটি মামলা (নং ৩৫, তারিখ ৯ জুন) দায়ের করা হয়েছে। 

ওই কিশোরীর দাদি মালেকা বেওয়া বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করে।ঐ শিক্ষক ইউনুস আলী সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের নওহাটী চাচিয়া গ্রামের হাবিবুর রহমান হবিয়ার ছেলে। 

থানায় দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়, গাইবান্ধা পৌরসভার থানাপাড়ায় শিক্ষক ইউনুস একটি বাসা ভাড়া নিয়ে পরিবার-পরিজন বসবাস করতো এবং গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতো। একই উপজেলার নওহাটি চাচিয়া গ্রামের মুকুল মিস্ত্রির ১৫ বছরের কিশোরী মেয় কে গৃহ পরিচারিকার কাজ করতে জেলা শহরের থানাপাড়া বাসায় নিয়ে আসে। সেখানে ওই কিশোরীকে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়ির লোকজনের আড়ালে মোবাইল ফোনে বিভিন্ন পর্ন ছবি দেখাতো। এছাড়া তাকে ফুসলিয়ে ও নানা প্রলোভন দেখিয়ে ২০২০ সালের মার্চের ১১ তারিখ থেকে তাকে জোর পূর্বক বিভিন্ন সময়ে ধর্ষণ করে। এ অভিযোগে আরও উলেখ করা হয়, ধর্ষক শিক্ষক ইউনুস আলী মামলার বাদি মালেকা বেওয়ার আপন ভাতিজা। সেই সুত্রে ধর্ষিত কিশোরীটি সম্পর্কে ওই শিক্ষকের ভাতিজি।

এ ঘটনায় নির্যাতিতার স্বজন ও এলাকার সচেতন মানুষ ধিক্কার জানিয়ে মানববন্ধনে অভিযুক্ত শিক্ষক ইউনুস আলীকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে তার দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি করেন।

 

পাঠকের মন্তব্য