করোনা সংক্রমণের নিরিখে ৫ লাখের সীমা ছাড়াল ভারত

করোনা সংক্রমণের নিরিখে ৫ লাখের সীমা ছাড়াল ভারত

করোনা সংক্রমণের নিরিখে ৫ লাখের সীমা ছাড়াল ভারত

মহারাষ্ট্রে আজ ৫,০২৪ টি নতুন কোভিড-১৯ সংক্রমণ কেস এবং ১৭৫ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। রাজ্যের আরোগ্যলাভের হার ১৭ শতাংশের বেশি এবং মৃত্যুর হার ৪.৬৫ শতাংশ। রাজ্যে মোট সক্রিয় আক্রান্ত ৬৫,৮২৯। শুক্রবার মুম্বইয়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা ৭২,১৭৫ এ পৌঁছেছে।

ভারতের করোনাভাইরাস তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা তামিলনাড়ুতে ৩,৫০৯ টি নতুন আক্রান্তের খবর মিলেছে। এক দিনে এই সর্বোচ্চ সংক্রমণে মোট সংক্রমণের সংখ্যা দাঁড়াল ৭০,৯৭৭। ৪৫ টি নতুন মৃত্যুর ফলে রাজ্যে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৯১১।

দিল্লিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩,৪৬০ টি নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছে। শুক্রবার জাতীয় রাজধানীর করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা মোট ৭৭,২৪০ এ পৌঁছেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ২,৩২৬ জন এই রোগকে হারিয়ে সুস্থ হয়েছেন। ৬৩ টি নতুন মৃত্যুর ফলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২,৪৯২ জন। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গে শুক্রবার এক দিনে সবচেয়ে বেশি কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঘটনা মিলেছে এবং ৫৪২ টি নতুন সংক্রমণ ঘটার পাশাপাশি মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়ে হয়েছে ১০। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬,১৯০। মোট ১০,৫৩৫ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন।

অন্ধ্রপ্রদেশেও একদিনে সর্বোচ্চ বৃদ্ধি দেখা গিয়েছে। ৫৫৩ টি নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণের ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্ত এখন ১০,৫৬০।

কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বৃহস্পতিবার বলেছিলেন যে সকলেরই তাদের ভ্রমণের গতিবিধি ট্র্যাক করা উচিত কারণ এটি করোনভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ক্ষেত্রে যোগাযোগের সন্ধানে সাহায্য করবে। বৃহস্পতিবার, রাজ্যে টানা সপ্তম দিনে ১২৩ টি COVID-19 কেস রিপোর্ট করা হয়েছে, যাতে রাজ্যে সংক্রমণের মোট সংখ্যা ৩,৩২৬ এ দাঁড়িয়েছে। বিজয়ন জানিয়েছেন, জুলাই থেকে প্রতিদিন ১৫,০০০ নমুনা পরীক্ষার লক্ষ্য নিয়েছে রাজ্য। বর্তমানে, দৈনিক প্রায় ৫,০০০ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়।

কর্ণাটকে গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৪২ টি নতুন সংক্রমণ এবং ৬ টি করোনাভাইরাস সংক্রান্ত মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে, এতে সংক্রমণের মোট সংখ্যা ১০,৫৬০ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বেঙ্গালুরুতে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদিউরাপ্পা বেঙ্গালুরুতে আবারও লকডাউন বা সিলিং না চাইলে কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করে মানুষদের সহযোগিতর আহ্বান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার ভারতীয় রেল জানিয়েছে যে, একমাসে দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ১ জুলাই থেকে ১২ অগাস্টের মধ্যে নিয়মিত ট্রেনের জন্য বুক করা সমস্ত টিকিট ফেরত দেওয়া হবে। রেল জানিয়েছে, কেবল মে ও জুনে ঘোষিত বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে।

ভারতে এখন পর্যন্ত মোট ৭৭,৭৬,২২৮ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায়, সর্বাধিক সংখ্যক নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২,১৫,৪৪৬ টি। করোনাভাইরাস দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ ১০ টি দেশের মধ্যে চতুর্থ স্থানে ভারত রয়েছে। করোনা ভাইরাস মহামারী গত বছরের শেষ দিকে চিনে আত্মপ্রকাশ করে। তার পর থেকে বিশ্বব্যাপী ৪.৯৯ লক্ষ মানুষ এই রোগে মারা গেছেন। ৯৬.০৪ লক্ষেরও বেশি মানুষ অত্যন্ত সংক্রামক ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য