ডিজিটাল পদ্ধতিতে উদযাপিত হবে বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মদিবস

ডিজিটাল পদ্ধতিতে উদযাপিত হবে বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মদিবস

ডিজিটাল পদ্ধতিতে উদযাপিত হবে বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মদিবস

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য সহধর্মিণী ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মদিবস ডিজিটাল পদ্ধতিতে উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

সোমবার (২৯ জুন) মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা তার বেইলি রোডের সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম জুমের মাধ্যমে বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মদিবস যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভায় যোগ দিয়ে এ কথা জানান।

সভায় প্রতিমন্ত্রী জানান, বর্তমানে করোনা মহামারি বিবেচনা করে আগামী ৮ আগস্ট বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মদিবস ডিজিটাল পদ্ধতিতে উদযাপন করা হবে।

বক্তব্যের শুরুতে বঙ্গমাতার জীবনের আদর্শ ও উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য সহধর্মিণী। তিনি ছিলেন মুক্ত চিন্তার অধিকারী, বিশ্বাসে অটল ও দৃঢ় প্রত্যয়ী নারী। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক কার্যক্রমে সব চিন্তা ধারার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছেন আর নেপথ্যে নেতৃত্বে প্রেরণা, শক্তি ও সাহস যুগিয়েছেন বঙ্গমাতা। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে এ মহীয়সী নারী সংগঠনের জন্য কাজ করে গেছেন ও কর্মীদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখতেন।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব ছিলেন সমাজের অনুকরণীয় আদর্শ। তার কর্ম ও জীবন আদর্শ নতুন প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে প্রতি বছর ৮ আগস্ট মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদার জাতীয় পর্যায়ে দিবসটি উদযাপন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করে অনুষ্ঠানটিকে মহিমান্বিত ও গৌরাবন্বিত করেছেন।

প্রস্তুতিমূলক সভার সভাপতি ও মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী রওশন আক্তার বঙ্গমাতার জন্মদিবস অনুষ্ঠানের বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে বিভিন্ন উপকমিটি গঠন করা হয়।

সভায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা, বিভিন্ন দপ্তর সংস্থার প্রধান, তথ্য মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ বিভাগ ও গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি অংশ নেন।

পাঠকের মন্তব্য