ডা. সাবরিনার জামিন নামঞ্জুর; কারাগারে প্রেরণ 

ডা. সাবরিনার জামিন নামঞ্জুর; কারাগারে প্রেরণ 

ডা. সাবরিনার জামিন নামঞ্জুর; কারাগারে প্রেরণ 

করোনার নমুনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট প্রদানের অভিযোগে গ্রেপ্তার জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

দুই দফায় পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে সোমবার (২০ জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে তাকে আবারও আদালতে তোলা হয়। এসময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশর পরিদর্শক লিয়াকত আলী মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

অন্যদিকে, ডা. সাবরিনার জামিন প্রার্থণা করেন তার আইনজীবীরা। আদালত শুনানি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলামের আদালতে জামিন শুনানি হয়।

এদিকে, দুই দফা জিজ্ঞাসাবাদে করোনা পরীক্ষায় অনিয়মে ডাক্তার সাবরিনা চৌধুরীর জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। সোমবার দ্বিতীয় দফা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান ডিএমপির উপ-কমিশনার ওয়ালিদ হোসেন। এসময় তিনি বলেন, শিগগিরই সাবরিনার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হবে। 

এর আগে ভুয়া করোনা রিপোর্ট তৈরির জন্য ডা. সাবরিনার স্বামী আরিফ চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পুলিশ জানতে পারে, জেকেজি হেলথ কেয়ার থেকে ২৭ হাজার রোগীকে করোনার টেস্টের রিপোর্ট দেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে দিয়ে ১১ হাজার ৫৪০ জনের করোনার নমুনা আইইডিসিআরের মাধ্যমে সঠিক পরীক্ষা করানো হয়েছিল। বাকি ১৫ হাজার ৪৬০ জনের রিপোর্ট প্রতিষ্ঠানটির ল্যাপটপে তৈরি করা হয়। জব্দ করা ল্যাপটপে এর প্রমাণ মিলেছে।

আরিফ চৌধুরী জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানান, জেকেজির ৭ থেকে ৮ জন কর্মী ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করতেন।

এদিকে ডা. সাবরিনাকে ১২ জুলাই গ্রেপ্তারের পর এদিন বিকেলে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের এক অফিস আদেশে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এছাড়া ডা. সাবরিনা ও তার স্বামী আরিফ চৌধুরীর ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য