মহামারির মধ্যেই এবার শুরু হলো হজের মূল কার্যক্রম

মহামারির মধ্যেই এবার শুরু হলো হজের মূল কার্যক্রম

মহামারির মধ্যেই এবার শুরু হলো হজের মূল কার্যক্রম

করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যেই এবার শুরু হলো হজের মূল কার্যক্রম। ইতোমধ্যে হজে অংশ নেওয়া ১৬০ দেশের এক হাজার হাজি মিনায় পৌঁছেছেন। পবিত্র নগরী মক্কা থেকে ইহরাম বেঁধে তারা মিনায় যান। মক্কা থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে মিনায় হজে অংশগ্রহণকারীরা ৫ ওয়াক্ত তথা জোহর, আসর, মাগরিব, ইশা ও হজের দিন ফজরের নামাজ আদায় করবেন।

সৌদি গণমাধ্যম আরব নিউজ বলছে, কোভিড-১৯ এর মহামারির মধ্যেই ব্যাপক স্বাস্থ্য সতর্কতা ও নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে এ বছরের পবিত্র হজ শুরু হলো। এক হাজার হজযাত্রী ইতিমধ্যে মিনায় পৌঁছেছেন। তাদের মক্কা থেকে মিনায় যাওয়া উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়।

খবরে বলা হয়েছে, মিনায় অবস্থানকারী হাজিগণ বৃহস্পতিবার সকাল আরাফাতের ময়দানে গিয়ে অবস্থান নেবেন। এর পর সারাদিন সেখানে তারা ইবাদত-বন্দেগিতে সময় অতিবাহিত করবেন। আরাফাতের ময়দানে সূর্যাস্ত পর্যন্ত অবস্থান করবেন হাজিরা।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে এবার সীমিত পরিসরে দেশটিতে অবস্থানরত বিদেশি ও স্থানীয়দের এক হাজার জনকে নিয়ে এবার হজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। অথচ প্রতিবছর প্রায় ২৫ লাখ লোক হজে অংশ নেন। সতর্কতা তথা করোনার সংক্রমণ রোধে এ বছর অনলাইনের মাধ্যমে নির্বাচিত হজপালনকারীদের আগে থেকেই তাপমাত্রা পরীক্ষা করে আইসোলেশনে রাখা হয়। তাদের যাবতীয় ব্যাগপত্র জীবাণুমুক্ত করেন স্বাস্থ্যকর্মীরা।

এদিকে, হজ উপলক্ষে পবিত্র মক্কা নগরীর কাবা শরীফের চারদিক জীবাণুমুক্ত করা হয়েছে। এ জন্য সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ও পরিচ্ছন্নকর্মী নিয়োগ করেছে। রয়েছে নানা তদারকি ও তৎপরত। কাবা শরীফের চারদিক ঘেরাও করা হয়েছে, যাতে হজে অংশগ্রহণকারীদের নিরাপত্তার কোনো সমস্যা না হয়। এ বছর হাজিরা কাবা শরীফ স্পর্শ করতে পারবেন না। ১.৫ মিটার তথা ৫ ফুট দূরত্ব বজায় রেখে তাওয়াফ, নামাজে অংশগ্রহণ ও সায়ীসহ হজের সব কার্যক্রম পালন করতে হবে।

অন্যদিকে, মিনায় পাথর নিক্ষেপের নুড়ি হজ কর্তৃপক্ষ বিশেষ ব্যাগের মাধ্যমে সরবরাহ করবে। পাথর নিক্ষেপসহ সব কাজের সময় মাস্ক ব্যবহার ও দূরত্ব বজায় রাখা বাধ্যতামূলক।

নিরাপত্তার অংশ হিসেবে এবার কাবা চত্ত্বর তথা তার আশপাশের নির্ধারিত এলাকায় অনুমতি ছাড়া কেউ প্রবেশ করতে পারবে না। শুধু সৌদি কর্তৃপক্ষ অনুমোদিত কার্ডধারী নিরাপত্তা, স্বাস্থ্যকর্মী ও অন্যান্য দায়িত্বশীলরা যাতায়াত করতে পারবেন। এর বাইরে কেউ গেলে জরিমানা গুণতে হবে।

পাঠকের মন্তব্য