বেরোবি ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পিএইচডি সেমিনার 

বেরোবি ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পিএইচডি সেমিনার 

বেরোবি ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পিএইচডি সেমিনার 

আব্দুল্লাহ আল তোফায়েল, বেরোবি প্রতিনিধি : রংপুর, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) ড. ওয়াজেদ রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং ইনস্টিটিউট-এর আয়োজনে পিএইচডি কনভার্সন সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০) বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন-২ এর ভাচুর্য়াল ক্লাসরুমে অনুষ্ঠিত সেমিনারটির সভাপতিত্ব করেন বেরোবি উপাচার্য এবং ড. ওয়াজেদ রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং ইনস্টিটিউট-এর পরিচালক প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ।

সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী যে ধরনের অচলাবস্থা এবং ক্ষতি হয়েছে আমরা সেখান থেকে উত্তরণ চাই। প্রযুক্তি আর উৎকর্ষেরসমন্বয় ঘটিয়ে আমরা সকল দিক থেকে এগিয়ে যেতে চাই। 

ড. ওয়াজেদ রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের সকল গবেষণা এবং এর কার্যক্রম আগামীতে সকল সময়েই আমরা সচল রাখতে চাই। সেমিনারে গবেষকবৃন্দের প্রতি শুভকামনা এবং অভিনন্দনও জানান বেরোবি উপাচার্য। 

সেমিনারে তিনজন গবেষক তাদের গবেষণা উপস্থাপন করেন। গবেষকবৃন্দের মধ্যে বেরোবি উপাচার্যের একান্ত সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  উপ-রেজিস্ট্রার, মোঃ আমিনুর রহমান, বীথিকা রানী ও হেলাল উদ্দিন পৃথক পৃথক গবেষণা উপস্থাপন করেন। 

সেমিনারে বিষয় বিশেষজ্ঞ হিসেবে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আশরাফুল করিম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. সালেহ উদ্দিন এবং আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এবং ড. ওয়াজেদ রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং ইনস্টিটিউট-এর পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ড. সাবের আহমেদ চৌধুরী। সেমিনারে বিষয় বিশেষজ্ঞগণ এবং আলোচকবৃন্দ উভয়েই গবেষকবৃন্দের গবেষণার বিষয়কে নানান আঙ্গিকে মূল্যায়ন করেন এবং সকলের গবেষণা কর্ম যাতে সফলতা অর্জন করে সেই আলোকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেন।

সেমিনারে সুপারভাইজার হিসেবে ছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সরিফা সালোয়া ডিনা এবং বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. পরিমল চন্দ্র বর্মণ এবং পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. মোঃ গাজী মাজহারুল আনোয়ার।

পাঠকের মন্তব্য