যুবলীগ, পটুয়াখালী জেলা শাখার বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত 

যুবলীগ, পটুয়াখালী জেলা শাখার বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত 

যুবলীগ, পটুয়াখালী জেলা শাখার বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত 

পটুয়াখালী জেলা যুবলীগের আয়োজনে বৃহস্পতিবার ২৪-সেপ্টেম্বর সকাল ১০.০০ ঘটিকার সময় শেরে-ই-বাংলা পাঠাগার মিলনায়তনে বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা যুবলীগ আয়োজিত বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করেন, সাবেক ধর্ম-প্রতিমন্ত্রী, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি পটুয়াখালী জেলা সদর ১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এ্যাডঃ মোঃ শাহজাহান মিয়া (এমপির) ছোট ছেলে আলহাজ্ব এ্যাডঃ মোঃ আরিফুজ্জামান (রনি), আহ্বায়ক- বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ পটুয়াখালী জেলা শাখা। সঞ্চালনায় ছিলেন এ্যাডঃ মোঃ শহিদুল ইসলাম (শহিদ), যুগ্ম-আহ্বায়ক, জেলা যুবলীগ।সভায় পটুয়াখালী জেলা যুবলীগের নেতাকর্মীসহ সাংগঠনিক প্রত্যেকটি উপজেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন।এসময় এজেন্ডা ভিত্তিক আলোচনা করা হয়।বিভিন্ন উপজেলার সভাপতি সাধারণ সম্পাদক অভিমত প্রকাশ করে বলেন, কোন অনুপ্রবেশকারী সংগঠন স্থান দেয়া যাবে না।এবং সংগঠনের নেতা কর্মীরা যদি অন্য কোন অঙ্গ সংগঠনে জড়িত থাকেন তাহলে সে পদে যোগ্য লোককে ঐ স্থানে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাবনা রাখেন। 

এছাড়াও জেলা উপজেলার অন্যান্য নেতাকর্মীরা বলেন, দলে যারা অনুপ্রবেশকারী, ষড়যন্ত্রকারী আছে তাদের তালিকা প্রস্তুত করে কেন্দ্রীয় কমিটিকে অবহিত করার প্রস্তাব রাখেন। সর্বশেষে জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আলহাজ্ব এ্যাডঃ আরিফুজ্জামান (রনি), নেতাকর্মীদের পরামর্শ অনুযায়ী আশ্বস্ত করে বলেন, আমরা জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড কমিটি পর্যালোচনা করে কোন অনুপ্রবেশকারী সংগঠনে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে অবহিত করব।এছাড়া সংগঠনের কোন নেতা অন্য কোন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনে যুক্ত হলে সে ব্যাপারে কেন্দ্রীয় কমিটির পরামর্শ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেব। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ এবং কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ কমিটির নির্দেশনা উপেক্ষা করে কোন কাজ করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে আশ্বস্ত করেন।

এছাড়াও বর্ধিত সভায় বিশেষ অথিতি হিসেবে, পটুয়াখালী সদর উপজেলার বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দ সোহেল, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান (মনির), আবুল বাশার প্রমুখ।

পাঠকের মন্তব্য