ইব্রাহিম হোসেন এর কবিতা : 'ধর্ষণ'

ইব্রাহিম হোসেন  এর কবিতা : ধর্ষণ 

ইব্রাহিম হোসেন  এর কবিতা : ধর্ষণ 

ধর্ষণ 
ইব্রাহিম হোসেন  

আজকে মোরা গর্ব করি 
স্বাধীন মোদের দেশ, 
স্বাধীনতা বুকে নিয়ে 
দিন কাটে যে বেশ। 
 
স্বাধীন দেশে স্বাধীন ভাবে 
নারী হরণ হয়, 
পায় না তারা স্বাধীনতা 
জীবন পরা'জয়। 

রাস্তা ঘাটে দেখলে মেয়ে 
ওড়নাতে দেয় টান, 
সুযোগ বুঝে ধর্ষণেতে 
নেয় কেড়ে তার জান। 

স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসাতেও  
থাকে নারীর ভয়, 
কখন বুঝি দানব গুলো 
জীবন করে ক্ষয়। 

অফিসেতে আদালতে 
করে নারী কাজ, 
লুচ্চা বশে প্রমোশনে 
নেয় কেড়ে নেয় লাজ। 

অশ্লীলতায় বশের কথায়  
সাড়া দিয়ে যায়, 
কেউ বা যদি না সাড়া দেয় 
বেঁচে থাকাই দায়। 

মা ও বাবা প্রাণের স্বামী 
থেকেও নারীর কাছ, 
নারী ভোগী হায়েনারা 
ছাড়ে না'যে পাছ। 

হায়না ভয়ে নারীর মনে 
বিরাজ করে ত্রাস, 
হবে না কি দেশের বুকে 
হায়না  ধর্ষক নাশ। 

ধর্ষকেরা নরপশু 
শয়তানেরই ভাই, 
সোনার দেশে এমন পশুর  
ফাঁসি মোরা চাই। 

মা চিনে না বোন চিনে না  
লুটেপুটে খাই, 
মনের মাঝে একটু খানি 
মানবতা নাই। 

বিচার বিভাগ অন্ধ কেন 
ধর্ষকে পায় ছাড়, 
অভিযোগে নারীর পরে 
ভাঙ্গে আবার ঘাড়। 

কান্না ভরা আর্তনাদে 
শুধুই আঁখি জল, 
আদালতের কাঠগড়াতে 
অসহায়ের ঢল। 

যুবক ছেলে সৎ সাহসী 
গর্জে উঠো ভাই , 
রক্তে কেনা মাতৃভূমি 
শান্তি যেন পাই। 

চাই না দেশে ধর্ষণ নারী 
চাই না নারী গুম, 
হারাম করে দাও ধর্ষকের  
দুই চোখেরই ঘুম। 

ধর্ষকেরা নেয় কেড়ে নেয় 
নারী জাতির মান, 
ক্ষান্ত না হয় সম্ভ্রম নিয়ে
নেয় যে আবার প্রাণ। 
 
চারিদিকে একই শুনি 
ধর্ষণেরই খুন, 
অপবাদে দেয় যে তাদের  
কাটা ঘায়ে নুন। 

দেশ জনতা চায় যে জবাব 
দেশের কাছে আজ, 
নয় তো কারো কাছে নারী 
পণ্য ভোগের সাজ।

পাঠকের মন্তব্য