জেলা পর্যায়ের দ্বন্দ্বে কঠোর ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগ

জেলা পর্যায়ের দ্বন্দ্বে কঠোর ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগ

জেলা পর্যায়ের দ্বন্দ্বে কঠোর ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগ

জেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পদকের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও গ্রুপিং হলে কমিটি থেকে তাদেরকে বাদ দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা। দলের শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে এমন নির্দেশনা পাওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করেছে কেন্দ্রীয় নেতারা। এ দিকে জেলা ও মহানগরের প্রস্তাবিত কমিটিতে কোন বিতর্কিত ব্যক্তির নাম আছে কিনা তা যাচাই করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন নীতিনির্ধারকরা। 

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের পর করোনার ছোবলে বন্ধ ছিলো সাংগঠনিক কার্যক্রম। দীর্ঘ সাত মাসের স্থবিরতা কাটিয়ে অনুষ্ঠিত হয় দলের সভাপতিমন্ডলী ও কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক। তাতে দলের নীতিনির্ধারণী ফোরামের নেতাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম গতিশীল করার নির্দেশনা দেন সভাপতি শেখ হাসিনা।

জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দ্ব›দ্ব থাকলে তাদের বাদ দিয়ে জেলার প্রথম সহ-সভাপতি ও প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদককে দায়িত্ব দেয়ার নির্দেশনাও আছে হাইকমান্ডের। কেন্দ্রীয় নেতারা জানলেন, দলীয় ঐক্যের প্রশ্নে তারা সৌহার্দ্যরে মাধ্যমে সমাধানের পথ খুঁজবেন।  

জেলা সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের পছন্দের লোক দিয়ে কমিটি করার বেশ কিছু অভিযোগ জমা পড়েছে কেন্দ্রে। তাই এখন থেকে প্রস্তাবিত কমিটি সভাপতির টেবিলে যাওয়ার আগেই যাচাই বাছাই হবে। কোন যোগ্যতায় পদ দেয়া হয়েছে তার জবাব দিতে হবে সংশ্লিষ্ট শাখার সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে। 

দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশে জেলা উপজেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী করতে বিভিন্ন উদ্যোগের অংশ হিসেবেই এসব সাংগঠনিক কার্যক্রম বলে জানান নেতারা। 

পাঠকের মন্তব্য