আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ছবি অবমাননার অভিযোগ

আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ছবি অবমাননার অভিযোগ

আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ছবি অবমাননার অভিযোগ

আব্দুল্লাহ আল তোফায়েল, বেরোবি প্রতিনিধি : বিভিন্ন ইস্যুতে দাবি জানাতে রেজিস্ট্রার অফিসে গিয়ে জাতির পিতা ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি অবমাননার অভিযোগ পাওয়া গেছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর এর আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য রেজিস্ট্রার বরাবর চিঠি দিয়েছেন সেকশন অফিসার (গ্রেড-১) শহীদ আল মামুন। আজ মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর,২০২০) তিনি এই পত্র দেন। বেরোবি রেজিস্ট্রার অফিস সূত্র এই চিঠি পাওয়ার কথা নিশ্চিত করেছে।

উক্ত অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, আজ মঙ্গলবার বেলা আনুমানিক ১২টায় রেজিস্ট্রার দপ্তরে কিছু সংখ্যক শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে রেজিস্ট্রার মহোদয়ের সঙ্গে দেখা করতে আসেন। এ সময় রেজিস্ট্রার দপ্তরের ২০৫ নং রুমে সুরক্ষিত স্থানে মেরামতের জন্য রাখা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুরাতন ছবি কয়েক জন কর্মকর্তা-কর্মচারী এলেমেলো করে রেখে মোবাইলে ছবি ও ভিডিও ধারন করে। এমনকি বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলের ক্যামেরাম্যানকে দিয়েও এই নাটকের ভিডিও ধারন করা হয়।

তিনি অভিযোগপত্রে আরো বলেন, ইতোপূর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসকল কর্মকর্তা-কর্মচারী বিভিন্ন কর্মকান্ডের জন্য সাময়িক বরখাস্ত এবং নানাভাবে বিতর্কিত সে সকল ব্যক্তিবর্গই একত্রিত হয়ে প্রশাসনকে বেকায়দায় ফেলতে ছবি অবমাননার এই নাটক রচনা করে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেন শহীদ আল মামুন।

উল্লেখ্য, বেশ কিছুদিন হলো অধিকার সুরক্ষা পরিষদের ব্যানারে প্রশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে আসছেন কয়েকজন শিক্ষক। সম্প্রতি তাদের সাথে কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী যোগ দিয়েছেন। উক্ত শিক্ষকবৃন্দের নেতৃত্বে আজ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রেজিস্ট্রার এর সাথে দেখা করতে গেলে তারা এই নাটক করে প্রশাসনকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করে বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে, অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহবায়ক প্রফেসর ড. মতিউর রহমান বলেন,'এটা সম্পূর্ণ মিথ্যাচার। আমরা আগামীকাল সেই কর্মকর্তা শাহিদ আল মামুনের কাছে চ্যালেঞ্জ করবো। সেখানে তো সিসি ক্যামেরা আছে আমরা সেই ভিডিও দেখতে চাইবো। প্রমাণ করতে না পারলে তাকে বরখাস্ত না করা পর্যন্ত আমরা সেখানে থেকে আসবোনা। কারণ সেন্সিটিভ একটা বিষয়ে মিথ্যা অপবাদ দিয়েছে সে।'

তিনি আরো বলেন, 'নিজের দোষ ঢাকতে তারা সবসময় এই ঘটনাগুলো ঘটায়। তাদের বিবৃতিতেই বুঝা যাচ্ছে যে ছবিগুলো মেরামতের জন্য অযত্ন অবহেলায় রাখা। এখন এটাকে এড়াতেই তারা উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপাচ্ছে।'

পাঠকের মন্তব্য