কুড়িগ্রামের বন্ধ বর্ডার হাট, বিপাকে দুই দেশের ব্যবসায়ীরা 

কুড়িগ্রামের বন্ধ বর্ডার হাট, বিপাকে দুই দেশের ব্যবসায়ীরা 

কুড়িগ্রামের বন্ধ বর্ডার হাট, বিপাকে দুই দেশের ব্যবসায়ীরা 

কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার বালিয়ামারী বর্ডার হাট (সীমান্তবর্তী হাট) দশ মাস যাবত বন্ধ রয়েছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে এ হাট সাময়িক বন্ধ রাখা হলেও দীর্ঘ সময় পর এখনও চালু হয়নি। ফলে বাংলাদেশ ও ভারত দুই দেশের ব্যবসায়ীরা পড়েছেন বিপাকে।

জানা যায়, কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলা এবং ভারতের মেঘালয় রাজ্যের আমপাতি জেলার মহেন্দ্রগঞ্জ থানার সীমান্তে চালু করা হয় বালিয়ামারী-কালাইরচর বর্ডার হাট। এ হাটটি প্রায় দশমাস যাবত বন্ধ রয়েছে। দেশের অভ্যন্তরে করোনা ভাইরাসের প্রবেশ ঠেকাতে সতর্কতা হিসেবে বাংলাদেশ অংশের স্থানীয় বর্ডার হাট ব্যবস্থাপনা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক গত ২০২০ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে এ হাটের কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর আর হাটটি চালু করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। এর ফলে হাটটিকে কেন্দ্র করে দুই দেশের সীমান্ত এবং এর আশেপাশে এলাকার দরিদ্র মানুষরা নতুন করে যে জীবন-জীবিকা গড়ে তুলেছিলেন তা স্থবির হয়ে পরেছে। আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন হাটের নির্ধারিত ক্রেতা-বিক্রেতারা। এ অবস্থায় দ্রুত হাটটি চালুর দাবি তাদের।

বর্ডার হাটে বাড়িতে তৈরি বালিশ, শাড়ি, লুঙ্গি ও গামছা বিক্রি করতেন বাংলাদেশের বিক্রেতা মাজেদা বেগম ও তার দুই মেয়ে। দীর্ঘ ৭-৮বছর ধরে তারা এ ব্যবসা করে রোজগার করছেন। হাট বন্ধ থাকায় এখন পুঁজি হারিয়ে পথে বসার মত অবস্থা তার। দিন কাটছে অনেক কষ্টে।

মাজেদা বেগম জানান, আমরা জানি বাংলাদেশের অনেক স্থলবন্দর করোনাকালীন বন্ধ ছিল। এখন তা চালু হয়েছে। কিন্তু এখনও বালিয়ামারী সীমান্ত হাট চালু হচ্ছেনা। দ্রুত হাট চালু করে দিলে আমরা উপকৃত হবো।

বর্ডারহাট কমিটির সদস্য ও রাজিবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুল আলম বাদল জানান, করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ সময় হাটটি বন্ধ রয়েছে। এতে দুদেশের ক্রেতা বিক্রেতারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। সম্প্রতি আমরা কমিটির সভাপতিসহ মিটিং করেছি। খুব শীগগির হয়তো খুলবে।

এ হাটে বাংলাদেশের ২৫ জন বিক্রেতা ও ৬১৪ জন ক্রেতা এবং ভারতের ৫০ জন বিক্রেতা ও ৩৫৯ জন ক্রেতা প্রতি সোম ও বুধবার এ হাটে কেনা বেচা করে। এদিকে, হাটের ক্রেতা-বিক্রেতাদের মাস্ক পরিধান ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে আবার বর্ডার হাটটি চালু করতে ইতোমধ্যেই ভারতের ব্যবস্থাপনা কমিটি সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

ভারতের দেয়া চিঠি প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বর্ডার হাট ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান ও কুড়িগ্রামের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. সুজাউদ্দৌলা জানান, আমরা গত ১৮জানুয়ারি পুনরায় হাট বসা নিয়ে সভা করে রেজুলেশন করেছি। অতি শীঘ্রই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এটি প্রেরণ করব। সেখান থেকে অনুমতি পেলে পুনরায় এ হাটের কার্যক্রম চালু করা সম্ভব হবে।

পাঠকের মন্তব্য