চট্টগ্রাম সিটি : ৪১০টি ভোটকেন্দ্র ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত

চট্টগ্রাম সিটি : ৪১০টি ভোটকেন্দ্র ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত

চট্টগ্রাম সিটি : ৪১০টি ভোটকেন্দ্র ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে থাকছে চার স্তরের নিরাপত্তা। ৭শ' ৩৫টি কেন্দ্রের ৪শ ১০টিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।  

কেন্দ্রের পাশাপাশি যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুরো শহরকে রাখা হবে নিরাপত্তা চাদরে। মাঠে থাকবে র‌্যাব পুলিশ, সোয়াট ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রায় ১০ হাজার সদস্য। স্টাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকছে বিজিবি। আর ১৪জন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে মাঠে থাকবে ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

ভোটের আগেই নগরীতে বাড়তি নিরাপত্তা বলয়, পাশাপাশি চলছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মহড়া। 

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বলছে, নির্বাচন ঘিরে হত্যাকাণ্ড ও কয়েকটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের পর ভোটের দিন চার স্তরের নিরাপত্তার ছক নেয়া হয়েছে। 

সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, ‘পুলিশের জনবল বাড়ানো হয়েছে, ‘আমাদের মোবাইল টিককে বিশেষভাবে নজর রাখার জন্য তালিকা দেয়া হয়েছে তারা তারা আমারদর ফিটব্যক দিবে। তাহলে আমরা তড়িতভাবে এ্যাকশনে যেতে পারব।’ তালিকা করা হয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের। এসব কেন্দ্রে থাকবে অস্ত্রধারী ছয় পুলিশ সদস্য ও ১২ জন করে আনসার সদস্য। এর বাইরে সাধারণ কেন্দ্রে অস্ত্রধারীসহ চার পুলিশ সদস্য ও ১২ জন করে আনসার সদস্য থাকবে।

সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, ‘কেন্দ্রের বাইরে টহল পুলিশ সাদা পোশাকের পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা তৎপর থাকবে। কোন কিছুতেই বা ভয় দেখিয়ে কোন ভোটারকে যেন ভোট থেকে দূরে রাখতে না পারে সে বিষযটা দেখছি।’ 

রির্টার্নিং কর্মকর্তা জানান, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য কোন ছাড় দেয়া হবে না।। কেউ যেন কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করতে না পারে। এবং এ বিষয়ে পুলিশকেও বলা হয়েছে। দোষী হলে আইনের আওতায় আনা হবে।

স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে প্রস্তুত থাকবে পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিটের বোম ডিসপোজাল ইউনিট, কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, সোয়াট, বিজিবি ও র‌্যাব।

পাঠকের মন্তব্য