প্রেমিকাকে ধর্ষণের পর গোপনে ভিডিও ধারণ; প্রেমিক আটক 

প্রেমিকাকে ধর্ষণের পর গোপনে ভিডিও ধারণ; প্রেমিক আটক 

প্রেমিকাকে ধর্ষণের পর গোপনে ভিডিও ধারণ; প্রেমিক আটক 

অবশেষে সিলেটে এক যুগল প্রেমিক, প্রেমিকার মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন। 

সিলেটে নগরীর তালতলা এলাকায় একটি হোটেল ডেকে এনে প্রেমিকাকে ধর্ষণের পর গোপন ক্যামেরায় ভিডিও ধারণ করে সোস্যাল মিডিয়া প্রচার করার মাধ্যমে হুমকি দিয়ে অনৈতিক বাব বার সম্পর্ক ও টাকা আদায়ের হুমিক দেওযার অপরাধে ১৮ ফেব্রুয়ারি নারী ও শিশু নির্যাতনসহ পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন প্রেমিকা কতোয়ালী থানায়।

ওই দিন রাতে কোতোয়ালি থানা পুলিশ সিলেট মীরক্সটুলায় অভিযান চালিয়ে আদিল হোসাইন লিমনকে গ্রেফতার করে। ১৯ ফেব্রুয়ারি আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। অভিযোক্ত আদিল হোসাইন লিমন সুনামগঞ্জ জেলার হাছননগর থানাধীন উপতক্কা ১/৪ নং বাসার আনোয়ার আলীর ছেলে। বর্তমানে লিমন কোতোয়ালি থানাধীন মীরবক্সটুলার ৭৪নং বাসায় বসবাস করে আসছে।

সূত্র জানায়, আদিল হোসাইন লিমন (২৩) এর সাথে তরুণী (২৩) এর দীর্ঘ দিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ১২ ফেব্রুয়ারি লিমনের কথায় ওই তরুণী সিলেটে আসেন। এরপর দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটে লিমন ওই তরুণীকে সিলেট নগরীর তালতলাস্থ হোটেল বিলাসে নিয়ে যান। সেখানে গিয়ে হোটেলের একটি কক্ষে উঠেন ওই তরুণী। সে সময় লিমন তরুণীকে ধর্ষণ করে গোপন ভিডিও ধারণ করেন। এরপর দুপুর ২টা ২২ মিনিটে তরুণী তার অসুস্থ পিতাকে দেখতে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৯নং ওয়ার্ডে যান।  সেখানে অবস্থা করার এক পর্যায়ে লিমন তরুণী মোবাইলে ফোন করে জানান তাকে ধর্ষণ করার ভিডিও চিত্র ধারণ করে রেখেছেন তিনি।

একপর্যায়ে তরুণীর হোয়ার্টস অ্যাপ নাম্বারে লিমন ধর্ষণের ভিডিও চিত্র পাঠালে তরুণী বিভ্রত হয়ে পড়েন। এসময় লিমন ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ওই তরুণীর কাছে ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। এরপর তার কথামত তরুণী ১৪ ফেব্রুয়ারি দুপুর ১২টায় ৫হাজার টাকা দেন লিমনকে। পূণরায় দৈহিক লালসায় পড়ে যান লিমন ১৬ ফেব্রুয়ারি লিমন দুপুর ১টায় ওসমানী মেডিক্যালের ৪নং গেইটে ওই তরুণীর সাথে দেখা করে আরও টাকা ও তার সাথে পূণরায় শারীরিক সম্পর্ক করার জন্য চাপ দেয়। এসময় লিমন ওই তরুণীর মোবাইলওটি নিতে চেষ্টা চালায়। মোবাইল, টাকা ও শারীরিক সম্পর্ক না করায় লিমন হোটেল গোপন ভাবে ধারণকৃত ভিডিও ফেসবুকসহ সোস্যাল মিডিয়ার ছাড়ার হুমকি দেয়। বধ্য হয়ে ভুক্তভোগি  প্রেমিকা প্রেমিকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন।

পাঠকের মন্তব্য