রানীশংকৈলে কৃষক পর্যায়ে মাঠ দিবস পালিত

রানীশংকৈলে কৃষক পর্যায়ে মাঠ দিবস পালিত

রানীশংকৈলে কৃষক পর্যায়ে মাঠ দিবস পালিত

ঠাকুরগাঁওয়ের রবিবার দুপুরে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃষক পর্যায়ে উন্নতমানের ধান, গম ও পাট বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প এর আওতায় ব্লক প্রদর্শনীর মাঠ দিবস পালিত হয়েছে। 

অনুষ্ঠানে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রংপুর বিভাগের ধান,গম,পাট বীজ উৎপাদনের সিনিয়র মনিটরিং কর্মকর্তা রেজাউল করিম। বিশেষ অতিথি উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জয়দেব নাথ, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার সাবের  আলম, রানীশংকৈল প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক সফিকুল ইসলাম শিল্পীসহ মাঠ পর্যায়ের কৃষকরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপসহকারি কর্মকর্তা মাসুদ রানা।

মাঠ দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ব্রি কর্তৃক সম্প্রতি আবিষ্কৃত ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ বোরো মৌসুমে অত্যন্ত সম্ভাবনাময় জাত। 

অতিথিরা উৎপাদনকৃত সব ধান বীজ হিসেবে সংরক্ষণ করে কৃষকদের মাঝে বীজ বিনিময় ও বিক্রয়ের মাধ্যমে এ জাতের আবাদ সম্প্রসারণ করতে পরামর্শ দেন। উপস্থিত কৃষকরা ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ এর বীজ পেয়ে খুবই খুশি এবং তারা এ ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার জন্য অনুরোধ করেন। এলাকার কৃষকরা এ ধানের অধিক ফলন দেখে তা আবাদে ব্যাপক আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ জাতগুলো সম্প্রসারণের মাধ্যমে দেশের খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জনকে আরও টেকসই করবে এবং দেশের এ উত্তর অঞ্চলে ব্রি'র মাধ্যমে সফলতা আনবে।

তিনি আরও বলেন, আবাদি জমি কমে যাওয়া সত্ত্বেও বর্তমান সরকারের কৃষিবান্ধব নীতির কারণে দেশে ধান উৎপাদন বেড়েছে প্রায় তিন গুণের বেশি। এ জাত দুটোর আবাদ সম্প্রসারণ করে ধানের উৎপাদন আরও কয়েক গুণ বাড়ানো সম্ভব হবে যা বাংলাদশেরে খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে গুরুত্বর্পূণ অবদান রাখবে।

পাঠকের মন্তব্য