অনলাইনে পরীক্ষা নিয়ে যা বললেন কুবি রেজিস্ট্রার

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ দিয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে অনলাইন পরীক্ষা নিতে যাচ্ছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)। এবং মূল পরীক্ষার  আগে থাকছে ২০ টি ডেমো টেস্ট।

সোমবার (৯ আগস্ট) অনলাইন প্লাটফর্ম 'জুমে' অনুষ্ঠিত অনলাইন পরীক্ষা বিষয়ক মিটিং শেষে এ তথ্য নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো: আবু তাহের।

এ মিটিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো: আসাদুজ্জামান ও সকল অনুষদের ডিন-চেয়ারম্যান ও বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা কমিটির সদস্যরা।

মিটিং শেষে রেজিস্ট্রার ড. মো: আবু তাহের বলেন, 'কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে পরীক্ষা নিবে। তবে পরীক্ষা নেয়ার আগে আমরা প্রথমে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিব অনলাইন পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে। এরপর বিভাগ ভিক্তিক শিক্ষার্থীদেরও এই প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হবে। প্রশিক্ষণ শেষে  বিভাগ ভিত্তিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তাদের শিক্ষার্থীদের কোন পরীক্ষাটা আগে নেওয়া জরুরি। অর্থাৎ যদি কোন বিভাগের আর একটা মাত্র পরীক্ষা বাকি থেকে গেছে তাহলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদের পরীক্ষাটাই নেওয়া হবে।'

তিনি আরও জানান, 'যে রুটিনে পরীক্ষা শুরু হয়েছিলো তার অবশিষ্ট পরীক্ষাগুলো নেওয়া হবে তবে রুটিন পরিবর্তন হবে না। বিভাগগুলোই সিদ্ধান্ত নিবে তাদের কোন পরীক্ষাটা অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।'

অনলাইন পরীক্ষা কবে নাগাদ শুরু হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে রেজিস্ট্রার ড. মো: আবু তাহের বলেন, 'আগামী সপ্তাহ থেকেই আমরা শিক্ষদের প্রশিক্ষণ শুরু হবে এরপরে ছাত্রদেরও এই প্রশিক্ষণের আওয়তায় আনা হবে। কারন প্রশিক্ষণ ছাড়া তো কোনভাবেই অনলাইন পরীক্ষা শুরু করা যাবে না।'

অনলাইন পরীক্ষা সুষ্ঠভাবে সম্পূর্ন করতে 'ডেমো টেস্ট' নেয়ার কথাও জানান তিনি। তিনি বলেন, 'অনলাইন পরীক্ষায় যাওয়ার আগে ২০টা ক্লাস টেস্টে আমরা যাচাই করবো কোন শিক্ষার্থী সমস্যায় পড়ছে কিনা এটা দেখার পরই ফাইনাল পরীক্ষা গুলো নেওয়া শুরু হবে। কারন যাচাই না করে তো ফাইনাল পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না এবং এটা উচিতও হবে না।'

অনলাইন পরীক্ষার নেয়ার সিদ্ধান্তে শিক্ষার্থীরা আনন্দিত। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী তাওহীদ সানি বলেন, ' গত ১৮ মাস যাবত আমরা এক সেমিস্টারে পরে আছি। দুই বার পরীক্ষা আরম্ভ হলেও এখনো দুটি পরীক্ষা বাকি। আমি চাই অতিদ্রুত অনলাইনের মাধ্যমে আমাদের থেমে থাকা পরীক্ষা গুলো নিয়ে নেয়া হোক এবং পর্যায়ক্রমে আমাদের পরবর্তী সেমিস্টারের ক্লাস যেহেতু শেষ, তাই ওই সেমিস্টারের মিডটার্ম পরীক্ষা গুলো নিয়ে নেয়া হোক।
'
প্রসঙ্গত, গত (২৩ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় অনলাইন পরীক্ষা গ্রহণের জন্য প্রকৌশল অনুষদের ডিন মোঃ তোফায়েল আহমেদকে কমিটির আহ্বায়ক এবং আইসিটি সেলের সহকারী কম্পিউটার প্রোগ্রামার এ. এম. এম. সাইদুর রশীদকে সদস্য সচিব, সকল অনুষদের ডিনদের সদস্য, সিএসই এবং আইসিটি বিভাগের বিভাগীয় প্রধানদের সদস্য করে অনলাইনে পরীক্ষা নেয়া বিষয়ক একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে আজকের এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

পাঠকের মন্তব্য