'পরিমনিকে মুক্তি দিন' 

গোলাম সারোয়ার; গবেষক ও কলামিস্ট

গোলাম সারোয়ার; গবেষক ও কলামিস্ট

পরিমনিকে মুক্তি দিন। দেশে শিল্প, সাহিত্য, চলচ্চিত্রে অবাধ কাজ করার সুযোগ রাখুন। স্বাভাবিক জীবন ব্যাহত হলে জাতির জীবনে অস্বাভাবিক লাইফস্টাইল নেমে আসবে। শিল্পীরা অপমানিত হলে তালেবানীরা উৎগত হবে। 

নায়ক নায়িকাদের বাড়িতে পার্টি-আড্ডা হবে, এটিতো স্বাভাবিক। সেখানে নিশ্চয় পার্টি না হয়ে খানকা শরীফ হবেনা। ছোটখাটো ভুলকে বড় করে দেখানোর পরিণাম শুভ হওয়ার নয়। 

অনেকে বলে থাকেন, পরিমনি নাকি খারাপ। চরিত্র বিকিয়ে দিয়ে যদি নায়িকা হওয়া যেতো, তবে বাংলাদেশে নায়িকা হতো লাখে লাখে। পৃথিবীর কোটি কোটি মেয়ে নায়িকা হওয়ার জন্যে সর্বস্ব দিতে রাজি থাকে। কিন্তু সবাই নায়িকা হতে পারেনা। এটি মেধা, মনন, প্রজ্ঞার একটি বিষয়। 

একটি অজপাড়া গ্রামের মেয়ে,-- মা-বাবা ছাড়া,-- প্রায় শূন্য থেকে উঠে এসে মেধা, মনন, প্রজ্ঞা ছাড়া এত উঁচুতে উঠে আসতে পারেনা। সে জন্যেই আমরা মনে করি, তিনি একজন অত্যন্ত ট্যালেন্ট অভিনেত্রী, যাঁর দরকার আছে বাংলাদেশের। 

পরিমনি ত্রিশটির মতো ছবি করলো। তার ভিতরে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগের একটি সফল ছবি 'স্বপ্নজাল' করলো। এই অবস্থায় তাঁর চরিত্র বিক্রি করার দরকারই নেই। কারণ, তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত নায়িকা। এটি প্রথম জীবনে বললে, হয়তো কেউ কেউ বিশ্বাস করতো। 

বাংলাদেশে এবং বিশ্বের চলচ্চিত্র জগতে নায়ক নায়িকাদের নিয়ে কিছু রহস্যের কথা থাকে। কারণ আসলেই তাঁরা স্বপ্নের জগতের মানুষ। তাঁদের নিয়ে স্বপ্নের কথা আসবেই। পৃথিবীর অন্য দেশের মতো বাংলাদেশের নায়িকাদের জীবনের যে মান, পরিমনিও প্রায় কমবেশি সে মানের। এখানে কেউ মাওলানা, কেউ পীর আওলিয়া, কেউ একেবারে খারাপ;-- এমন নয়। 

আমরা দেখতে পাই, পরিমনির সাথে বোটক্লাবের সেই অনাকাঙ্খিত ঘটনার পর থেকে তাঁকে খারাপ মেয়ে হিসেবে দেখানোর একটি প্রচেষ্টা চলছে। পরিমনি নিজের ব্যক্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে যখনই তাঁর অস্তিত্বের জানান দিলো, তখনই তাঁর বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে মানুষ বিশ্বাস করে। 

তাঁকে নিয়ে এ পর্যন্ত যতগুলো ভিডিও বের হলো, তার ভিতরে মানুষ বিশ্বাস করছে শুধু তাঁর লাইভগুলোই রিয়েল। মানুষ বিশ্বাস করে বাকী সবগুলো সুপার এডিটিং। মানুষের বিশ্বাসের উপর কেউ জোর করতে পারেনা। প্রতিটি মানুষ তার বিবেকের বিবেচনাতে এক একজন বিচারপতি। 

বাংলাদেশে এত বড় বড় অঘটন নিয়ে সময় ও মেধা ব্যয় না করে একটি ক্রিয়েটিভ মানুষকে হেনস্তা করতে এত সময় বিনিয়োগকে মানুষ ভালো চোখে দেখছেনা। 

মনে রাখবেন, রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক শূন্যতার সুযোগেই অপশক্তি শূন্যতা পূরণ করে নেয়। আমাদের আহবান হলো, তাঁকে মুক্তি দিন। তাঁর কথাগুলো মানুষকে শুনতে দিন। তাঁকে কাজ করার সুযোগ দিন।

ফেসবুক স্ট্যাটাস লিঙ্ক : Md Golam Sarwar
লেখক : গবেষক ও কলামিস্ট 

পাঠকের মন্তব্য