প্রেমের টানে ঘর থেকে বাহির হয়ে ঠাঁই হলো কারাগারে

জাহিদ হাসান ও সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা

জাহিদ হাসান ও সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা

নবীগঞ্জে প্রেমের টানে ঘর থেকে বাহির হয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েও শেষ পর্যন্ত প্রেমিক যুগলের ঠাঁই হল জেল হাজতে। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে উক্ত প্রেমিক যুগল জাহিদ হাসান ও সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা নবীগঞ্জ থানায় স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে স্বেচ্ছায় কারাভোগের সিদ্ধান্ত জানান। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তাদের জবানবন্দি শুনে প্রেমিক জাহিদ হাসান (২১)কে মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করেন। সেই সাথে প্রেমিকা সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসাকে বিজ্ঞ আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি, হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে বয়স নির্ধারনের জন্য প্রেরন করেন। সেখানে ডাক্তারী পরীক্ষা শেষে বিজ্ঞ আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি শেষে ভিকটিম সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা তার মা'য়ের জিম্মায় না যাওয়ায় বিজ্ঞ বিচারক তাকে সিলেট সেইভ হোমে প্রেরনের নির্দেশ প্রদান করেছেন।

সুত্রে জানাযায়, নবীগঞ্জ উপজেলার নাদামপুর এলাকার মৃত আব্দুল মতিন খানের মেয়ে এবং ঠিকাদার মোজাহিদ খানেরঁ ভাইজতি সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা (১৮) দীর্ঘদিন ধরে পৌর এলাকার রাজাবাদ গ্রামের ফরহাদ মিয়ার ছেলে জাহিদ হাসান (২১) এর সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। এই খবর সুমাইয়া ফেরদৌসির পরিবারের লোকজন জানতে পেরে তার উপর চলে পরিবারের অমানুষিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে সুমাইয়ার মাদক আসক্ত ভাই ও মা মিলে পিতৃক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার জন্য তাদের নামে রেজিস্ট্রি দলিল মুলে লিখে দেয়ার জন্যও চাপ দেয়া হয়। অপর দিকে তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে অন্যত্র বিবাহ দেয়ার জন্য নানা কৌশল করলে গত ৬ সেপ্টেম্বর বিকালে সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা তার প্রেমিকের হাত ধরে ঘর থেকে বেরিয়ে অজানার উদ্দেশ্যে ফাড়ি দেয়। 

এ ঘটনায় প্রেমিকার মা বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলার খবর পেয়ে প্রেমিক জুটি মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে থানায় স্বেচ্ছায় হাজির হন। এ ব্যাপারে প্রেমিকা সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা জানান, তার মা-ভাই খারাপ ছেলেদের দিয়েও তাকে নির্যাতন করাতেন। পিতৃক সম্পত্তি নেয়ার জন্য এবং তাকে অন্যত্র বিবাহ দেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ ও নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন। তা সহ্য করতে না পেরে তার প্রেমিক জাহিদ হাসানকে খবর দিয়ে নিয়ে তার হাত ধরে পালিয়ে গিয়ে কোর্ট ম্যারিজ করেন। বর্তমানে তারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সুখে শান্তিতে ছিলেন। কিন্তু তার মা থানায় মামলা দায়ের করার খবর পেয়ে তারা থানায় আত্মসমর্পন করেন। এদিকে ভিকটিম প্রেমিকা সুমাইয়া ফেরদৌসি লিসা এর ডাক্তারী পরীক্ষা শেষে বিজ্ঞ আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেন। এতে সুমাইয়া ফেরদৌসির উপর তার মা-ভাইয়ের অত্যাচার নির্যাতনের লোমহর্ষক ঘটনার বর্ণনা দেন। পরে বিজ্ঞ বিচারক ভিকটিম তার মা'য়ের জিম্মায় যেতে না চাওয়ায় সিলেটস্থ নিরাপত্তা হেফাজতে প্রেরন করেন।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সম্রাট জানান, উক্ত প্রেমিক যুগল মঙ্গলবার ভোরে পালিয়ে যাবার সময় স্থানীয় নতুন বাজার (গাজীর টেক) এলাকা থেকে তাদের আটক করে প্রেমিক জাহিদকে মামলায় আদালতে প্রেরন এবং প্রেমিকাকে ডাক্তারী পরীক্ষা ও আদালতে জবানবন্দি প্রদানের জন্য হবিগঞ্জ প্রেরন করা হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য