লক্ষীপুরের চৌধুরী বাজার টু মীরগঞ্জ সড়কের বেহাল অবস্থা

লক্ষীপুরের চৌধুরী বাজার টু মীরগঞ্জ সড়কের বেহাল অবস্থা

লক্ষীপুরের চৌধুরী বাজার টু মীরগঞ্জ সড়কের বেহাল অবস্থা

রাস্তার দৈর্ঘ্য প্রায় ৪ কিলোমিটার। চৌধুরী বাজার টু মীরগঞ্জ বাজার। রাস্তাটি জেলার তিনটি উপজেলার মিলনস্থল। সড়কটির পূর্বপাশ লক্ষীপুর সদর উপজেলার, পশ্চিমের অংশভাগ রায়পুর উপজেলার এবং উত্তরের শেষ অংশ রামগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত।

এটি উপজেলার অন্যতম একটি ব্যস্ত সড়ক এর আশেপাশে রয়েছে কমপক্ষে ২ টি হাইস্কুল, ৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২টি মাদ্রাসা, ৪ টি বাজার সহ অনেক ছোটবড় প্রতিষ্ঠান এবং গুরুত্বপূর্ন স্থাপনাসমূহ।

কিন্তু পরিতাপের বিষয় হচ্ছে যে দীর্ঘদিন যাবত রাস্তাটির সংস্কার করা হচ্ছেনা। এর ফলে ৪ কিলোমিটার রাস্তার পুরোটাই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।পিচ উঠে যাওয়া সহ রাস্তার বেশিরভাগ অংশই ভেঙ্গে গেছে।পুরো রাস্তায় অন্তত ৫০ টি ছোটবড় গর্ত রয়েছে, যার মধ্যে বিপদজনক গর্ত রয়েছে কমপক্ষে ১০টি।

দিনের বেলায় প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে ছোটবড় দূর্ঘটনা, আর রাতের বেলায় কিভাবে মানুষজন পারাপার হচ্ছে, ভাবতেই অবাক লাগে। স্বাভাবিকভাবেই ঘটছে দূর্ঘটনা আর বর্ষার ছোঁয়া পেলে রাস্তা তো রাস্তা থাকেনা, হয়ে যায় কর্দমাক্ত ফুটবল খেলার মাঠ।

এমতাবস্থায় রাস্তাটি চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী বিধায় জনগনের ভোগান্তির সীমা নেই। এলজিইডি মন্ত্রনালয়ের অধীভূক্ত রাস্তাটির সংস্কার যদি অনতিবিলম্বে না করা হয়, তবে এ অঞ্চলের মানুষের চলাফেরা করাই দায় হবে, রাগে ক্ষোভে ফেটে পড়বে মানুষজন।

লক্ষীপুরের অর্থনৈতিক জোন হিসেবে এ অঞ্চলের পরিচিতি পুরো জেলায় রয়েছে, তাহলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কেন চুপ ?

সড়ক ও জনপদ বিভাগ যেখানে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে অংগীকারাবদ্ধ, সেখানে জেলার একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কের বেহাল অবস্থা কি সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেনা। সরকারের ভাবমূর্তি রক্ষা এবং জনগনের ভোগান্তি নিরষনে রাস্তাটির দ্রুত সংস্কারের জন্য জেলা সড়ক ও জনপদ কর্তৃপক্ষের প্রতি বিনীত আহবান করেন এলাকার গণ্যমান্যসহ সাধারন জনগন।

কর্তৃপক্ষের একটু সদিচ্ছার বাস্তবায়নের ফলে মানুষজন রক্ষা পেতে পারে অসংখ্য দূর্ঘটনার হাত থেকে, চলাফেরা করতে পারবে নিরাপদে সকল স্তরের মানুষ, ব্যবসা হয়ে উঠবে জমজমাট এ আশা এ অঞ্চলের মানুষর।

পাঠকের মন্তব্য