রংপুরে পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন এএসপি

পুলিশ সুপার আবু তৈয়ব মোঃ আরিফ হোসেন

পুলিশ সুপার আবু তৈয়ব মোঃ আরিফ হোসেন

রংপুরে পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু তৈয়ব মোঃ আরিফ হোসেন। মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) রাতে জেলার বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন করেন তিনি।

এ সময় রংপুর (সদর) কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোস্তাফিজার রহমান, এএসআই (নিরস্ত্র) মাহমুদুল হাসান, পূজা উদযাপন কমিটির উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য শ্রী নারায়ণ চন্দ্র মহন্ত, সভাপতি রতন চন্দ্র রায়, সাধারণ সম্পাদক ধিজেন্দ্র নাথ রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক পার্থ সারথি রায়, কোষাধ্যক্ষ অর্জুন চন্দ্র মহন্ত, কার্যকরী সদস্য কামিক্ষা রায়সহ হিন্দু ধর্মীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় এএসপি দর্শনার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং পূজার সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন।

পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক  বলেন, দেবী দুর্গা এবার ঘোটকে চড়ে পৃথিবীতে এলেও দোলায় করে স্বর্গে ফিরে যাবেন। করোনা সংক্রমণ রোধে পূজা উদযাপন পরিষদ, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই দুর্গাপূজার আরাধনা চলছে।

কোতোয়ালি (সদর) থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোস্তাফিজার রহমান বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক ও সজাগ থেকে মণ্ডপগুলোতে দায়িত্ব পালন করছেন।

পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনের সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) আবু তৈয়ব মোঃ আরিফ হোসেন বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশে বাঙালি হিন্দুদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। সবাই মিলে এ উৎসবকে শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপন করা হয়। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পূজা উদযাপন সম্পন্ন করতে প্রত্যেকটি মণ্ডপে শৃঙ্খলা কমিটির পাশাপাশি থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এ বছর রংপুর জেলায় যে ৯৫৬টি পূজামণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজার আয়োজন করা হয়েছে তার মধ্যে রংপুর মহানগরে ১৫৩টি, সদর উপজেলায় ১০২, বদরগঞ্জে ১৩২, মিঠাপুকুরে ১৪০, গংগাচড়ায় ১০৮, পীরগঞ্জে ৯৭, কাউনিয়াতে ৬৫, তারাগঞ্জে ৬৭, পীরগাছায় ৮৯টি মণ্ডপ রয়েছে।

এছাড়াও মহানগর এলাকা বাদ দিয়ে পুরো রংপুর বিভাগের আট জেলায় ৫ হাজার ১৮৯টি পূজামণ্ডপ সেজেছে দূর্গা উৎসব আয়োজনে। এর মধ্যে অধিক গুরুত্বপূর্ণ মণ্ডপ রয়েছে ১ হাজার ৩১১টি। আর গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ১ হাজার ৩০৬টি পূজা মণ্ডপ। সাধারণ মণ্ডপ হিসেবে ২ হাজার ৫৭২টি পূজা মণ্ডপ চিহ্নিত করা হয়েছে।

রংপুর জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ১১ অক্টোবর দুর্গাদেবীর বেলষষ্ঠী পূজা, ১২ অক্টোবর মহাসপ্তমী বিহিত পূজা, ১৩ অক্টোবর মহাষ্টমী, ১৪ অক্টোবর এক দিনে মহানবমী বিহিত পূজা এবং ১৫ অক্টোবর মহাদশমীতে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে করোনাকালের দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

পাঠকের মন্তব্য