পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে মার খেলো হতদরিদ্র ফুল মিয়া

পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে মার খেলো হতদরিদ্র ফুল মিয়া

পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে মার খেলো হতদরিদ্র ফুল মিয়া

নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ারভাঙ্গ ইউনিয়নের (৮ নং ওয়ার্ড) এর ইউপি সদস্য শাহজাহান মিয়ার কাছে পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার হয়েছে হতদরিদ্র ফুল মিয়া (২৭), নামে এক ব্যক্তি।  বিনা অপরাধে পাওনা টাকা চাওয়ার কারণে নিমর্মভাবে মারপিট করেছে ইউপি সদস্য শাহজাহান ও তার ভাই মনসরসহ আরো বেশ কয়েক জন লোক। 

হতদরিদ্র ফুল মিয়ার পরিবারের লোকজন  জানিয়েছেন, কালিয়াটভাঙ্গা ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের আঃ শহিদ মিয়ার পুত্র ফুল মিয়া (২৭) নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। গতকাল (০৬ মে) শুক্রবার বিকেল অনুমান ০৪ ঘটিকার সময় ইউপি সদস্য  শাহজাহান মিয়ার বাড়িতে গিয়ে ফুল মিয়া তার পাওনা টাকা চায়। এসময় ইউপি সদস্য শাহজাহান মিয়া ও তার ভাই মনসুরসহ আরো বেশ কয়েক জন লোক মিলে তাকে ধরে তাদের বাড়ির উঠানে ফুল মিয়ার ওপর চালানো হয় অমানুষিক নির্যাতন। 

ফুল মিয়ার সুর চিৎকার শুনে আশপাশের স্থানীয় লোকজন এসে ইউপি সদস্য শাহজাহান ও তার ভাই মনসুরসহ বেশ কয়েকজন লোকের কবল থেকে উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে চিকিৎসারত অবস্থায় এক দিন পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক গুরুত্বর অবস্থায় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। 

এসময় ফুল মিয়া বলেন, ইউপি সদস্য শাহজাহান মিয়া প্রায় ৩ বছর আগে আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা চান। কিন্তু আমার কাছে টাকা না থাকার করণে একটি সমিতির কাছ থেকে আমি জামিন হয়ে ৫ হাজার টাকা দেই। এই ৩ বছর থেকেই আমার সঙ্গে এভাবে তারিখ করেন। আমাকে গ্রাম থেকে বেশ কয়েকজন মাতব্বর মুঠো জানান আমরা তোমার বিষটি গ্রাম বিচার শালিশের মাধ্যমে শেষ করে দেব। 

ফুল মিয়া আরো বলেন, ইউপি সদস্য শাহজাহান ও তার পরিবারের লোকজন যে কোনো সময় আমার জান মালের কতি হতে পারে তাই আমি ও আমার পরিবার নিরাপত্তা হিনতায় ভুগছি। এব্যাপারে স্থানীয় মাতব্বররা জানান, ঘটনাটি নিয়ে স্থানীয়ভাবে সমাধানের চেষ্টা করছি। 

এব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ডালিম আহমেদ বলেন, এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য