প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন রনিল বিক্রমাসিংহে

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন রনিল বিক্রমাসিংহে

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন রনিল বিক্রমাসিংহে

শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন রনিল বিক্রমাসিংহে। সন্ধ্যায় প্রেসিডেন্ট গোতাবি রাজাপাকসে তাকে শপথবাক্য পাঠ করান। এ নিয়ে ষষ্ঠবারের মতো প্রধানমন্ত্রী পদে অথিষ্ঠিত হলেন ৭৩-বছর বয়সী এ রাজনীতিক।

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবি রাজাপাকসে সন্ধ্যায় রনিল বিক্রমাসিংহেকে প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ পাঠ করান। 

শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে রনিল বিক্রমাসিংহেকে অভিনন্দন জানিয়ে এক বার্তায় বলেছেন, আমি আশা করি এই কঠিন সময়ে আপনি দেশকে নেতৃত্ব দিয়ে সফল হবেন।

দায়িত্ব গ্রহণের পরপর রনিল বিক্রমাসিংহে বলেছেন, আগামীকাল কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের নাম ঘোষণা করা হবে।

এর আগে শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট পার্লামেন্টে বৃহত্তম বিরোধী দল এসজেবির নেতা সাজিথ প্রেমাদাসাকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানালে তিনি প্রত্যাখ্যান করেন। পরে এসজেবির এমপিদের সমর্থনের আশ্বাসে রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী হবার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ইউএনপি নেতারা দলীয় প্রধান রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন বলে সংবাদমাধ্যমকে জানান। কলম্বো স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটে তিনি শপথ নেবেন বলে তারা উল্লেখ করেন।

রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন এ মর্মে খবর ছড়িয়ে পড়লে এসজেবি নেতা সাজিথ প্রেমাদাসা চার শর্তে প্রধানমন্ত্রী হতে রাজি আছেন জানিয়ে প্রেসিডেন্ট গোতাবি রাজাপাকসেকে একটি চিঠি লেখেন। সাজিথের চিঠি ও রনিলের সম্মতি- এ দুইয়ে দোলাচলের মধ্যে প্রকৃত অর্থে কে প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন, তা নিয়ে কিছু সময়ের জন্য ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয় বলে শ্রীলঙ্কার কয়েকজন সাংবাদিক জানান। পরে সন্ধ্যায় প্রেসিডেন্টের মিডিয়া অফিস জানায়, রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নিয়েছেন।

শ্রীলঙ্কার ২২৫ আসনের পার্লামেন্টে রনিল বিক্রমাসিংহের দল ইউএনপির আসন মাত্র একটি। সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের দল এসএলপিপির জোটের শরিক ছিল ইউএনপি। ফেব্রুয়ারি মাসে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হবার আগে পর্যন্ত এই জোটেই ছিল দলটি।

শ্রীলঙ্কায় কেউ কেউ অভিযোগ করেছেন, মাত্র একটি আসনে প্রতিনিধিত্বকারী সাবেক জোটসঙ্গীকে প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ পাঠ করিয়ে প্রেসিডেন্ট গোতাবি রাজাপাকসে তার ভাই মাহিন্দা রাজাপাকসেকে বাঁচাতে চাচ্ছেন।

শ্রীলঙ্কা জনতা বিমুক্তি পেরামুনা (জেভিপি) দলের নেতা অনুরা কুমারা দিশানায়েকে এমপি বলেছেন, রনিল বিক্রমাসিংহে বরাবরই রাজাপাকসে পরিবারের রক্ষক। তার প্রধানমন্ত্রী হওয়া জনগণের কাম্য নয়।

শ্রীলঙ্কার প্রভাবশালী বৌদ্ধ ধর্মীয় নেতা ওমালপি সবিথা থেরো ও খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতা কার্ডিনাল ম্যালকম রনজিথ বিকেলে এক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে বলেছেন, রনিল বিক্রমাসিংহেকে প্রধানমন্ত্রীকে পদে নিয়োগ সংবিধানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।

পাঠকের মন্তব্য