গাফফার চৌধুরী বলেছিলেন- 'চাকরী ছেড়ে লেখক হয়ে উঠো'

মোঃ গোলাম সারোয়ার, গবেষক ও কলামিস্ট 

মোঃ গোলাম সারোয়ার, গবেষক ও কলামিস্ট 

মহাকাশে আমাদের কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পর জনকণ্ঠে আমি একটি উপসম্পাদকীয় কলাম লিখেছিলাম, যা সরকার উৎকৃষ্ট কলাম হিসেবে নির্বাচিত করে আমাকে অর্থ সম্মানীও দিয়েছিলেন। সে কলাম পড়ে জনাব আবদুল গাফফার চৌধুরী আমাকে ফোন করেছিলেন। 

তিনি আমাকে বলেছিলেন, আমাকে দিয়ে হবে। তিনি আমাকে সাহস দিয়ে বলেছিলেন, তুমি চাকরি বাকরি ছেড়ে দাও। চাকরি করার জন্য দেশে বহু ছেলে আছে। তুমি দারিদ্রতার ঝুঁকি মাথায় নিয়ে শুধু মাত্র লেখক হয়ে উঠো। তোমার সব অর্থ, বিত্ত, সম্মান, আকাশ জোড়া পদ মর্যাদা তোমার মৃত্যুর পর শেষ হয়ে যাবে, কিন্তু যদি লিখ তবে তুমি বেঁচে থাকবে। 

আমি উনাকে না বলার সাহস পাইনি। কিন্তু আমার বৃহৎ পরিবারের কথা মাথায় রেখে আমি সাহস করে পরিপূর্ণ সাংবাদিক, লেখক কিংবা কবি হয়ে উঠতে পারিনি। 

তবে আমার সব সময় স্বপ্ন ছিলো যখন আমার ভাইয়েরা আরো শক্তপোক্ত হবে তখন আমি সব ছেড়েছুড়ে দিয়ে স্টাডি রুমে ঢুকে যাবো। উনার মতো শুধু লিখবো আর পড়বো। 

বাঙালী গত কয়েক বছর থেকে তার কালপুরুষদের হারাতে শুরু করেছে। এটি হলো জাতির ক্ষয় রোগের সময়। জাতি ক্রমান্বয়ে মেধাহীন হয়ে যাচ্ছে। এই ক্ষতি কত যুগ পরে পুষবে আমরা জানিনা। বুদ্ধিজীবী হত্যার পর জাতির যে ক্ষতি হয়েছিলো এঁরা সেই ক্ষতি জাতিকে পুষিয়ে দিয়েছিলেন। বর্তমান জেনারেশন কি এঁদের ক্ষতি পোষাতে পারবে ?

আমাদের কালপুরুষদের একে একে মৃত্যুর পর সবাই শোক জানিয়ে লিখেছে এবং লিখে। আমি কখনো লিখিনি কাউকে নিয়ে। এর কারণ এই নয়, আমি কাউকে মিস করিনি। আমি নিবিড়ভাবে মিস করি। 

তবুও আমি লিখিনি। কারণ আমি জীবিত মানুষ নিয়ে কাজ করি। ব্যক্তিসত্ত্বা মৃতদের নিয়ে আমার কোন আগ্রহ নেই। এরও কারণ আছে। আমার পৃথিবীর সবচেয়ে মহান দুটো লাশ আমি নিজের হাতে সমাহিত করে এসেছি আমার বাড়ির সামনে। এরপর পৃথিবীর কোন মৃত্যু আমাকে স্পর্শ করেনা। 

তবুও জনাব আবদুল গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে আমার হৃদয় কেঁপে উঠেছে। উনি সহ আমাদের সব কালপুরুষদের আত্মার শান্তি কামনা করছি। উনাদের এই তিরোধানে আমাদের যে জাতিগত মেধার শূন্যস্থান সৃষ্টি হচ্ছে সেটা এই জেনারেশন পূরণ করবে সে আশা করি।

ফেসবুক স্ট্যাটাস লিঙ্ক : Md Golam Sarwar
লেখক : গবেষক ও কলামিস্ট 

পাঠকের মন্তব্য