দুমকিতে মানববন্ধনে অধ্যক্ষকে গালিগালাজ, থানায় অভিযোগ

মুরাদিয়া আজিজ আহমেদ কলেজ

মুরাদিয়া আজিজ আহমেদ কলেজ

পটুয়াখালীর দুমকিতে মিথ্যা অভিযোগ ও সংবাদ সম্মেলনে বিরুদ্ধে মানববন্ধন করার সময় মুরাদিয়া আজিজ আহমেদ কলেজের অধ্যক্ষ আহসানুল হক ও কলেজের শিক্ষকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও দেখে নেয়ার হুমকির অভিযোগ উঠেছে জসিম উদ্দিন হাওলাদার (৫৭) নামে এক ব্যাক্তির নামে। 

আজ (২১) জুন দুপুর ১২টার সময় কলেজ ক্যাম্পাসের সামনে রাস্তার উপর এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিকালে ৩ জনের নামে দুমকি থানায় লিখিত অভিযোগ দেন মুরাদিয়া আজিজ আহমেদ কলেজের অধ্যক্ষ আহসানুল হক।

লিখিত অভিযোগে আজিজ আহমেদ কলেজের অধ্যক্ষ আহসানুল হক জানান, গত ১৯ জুন সকালে প্রেসক্লাব দুমকির হলরুমে বসে আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ ও সংবাদ সম্মেলন করেন মুরাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মমতাজ উদ্দিন হাওলাদারের ছেলে জসিম উদ্দিন হাওলাদার। পরে সেদিন বিকালেই মিথ্যা অভিযোগের বিরুদ্ধে এবিষয়ে প্রেসক্লাব দুমকিতে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। পরে আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে মুরাদিয়া আজিজ আহমেদ কলেজের শিক্ষক, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীরা মানববন্ধন করতে গেলে মানববন্ধনে বাঁধা, ছাত্র-ছাত্রীদের মানববন্ধন থেকে ধমক দিয়ে চলে যেতে বলেন এবং কিভাবে চাকরি করব তা প্রকাশ্যে দেখে নেয়ার প্রকাশ্যে হুমকি দেন জসিম উদ্দিনসহ ফোরকান ও শ্রী নিখিল।

তিনি আরো বলেন, আমি ও কলেজের শিক্ষক এবং যেকোন ছাত্র-ছাত্রীদের ক্ষতি করতে পারে বলে তাই তাদের ৩ জনের নামে থানায় অভিযোগ দিয়েছি।

অভিযোগের বিষয়ে জসিম উদ্দিন হাওলাদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি  বলেন, সকালে আমি বাজারে ছিলাম তখন লোকজনের ডাকাডাকি শুনি। পরে গিয়ে দেখি আহসানুল হকসহ কলেজের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীরা মানববন্ধন করছে। তখন ছাত্র-ছাত্রীদের বলি তোমরা এখানে কেন এসেছো ক্লাস রেখে এবং তাদের যেতে বলি। এছাড়া তখন কিছু ছাত্র-ছাত্রীদের অভিবাবকরাও তাদের যেতে বলে।

তিনি আরো বলেন, অধ্যক্ষ আহসানুল হককে আমি কোন হুমকি দেইনি। তাকে হুমকি দেয়ার কি আছে তার বিরুদ্ধে আমি যে অভিযোগ দিয়েছি তা যদি মিথ্যা হয় তবে সে তা সত্য বলে প্রমাণ করুক তাহলেই তো হয়।

দুমকি থানার তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ মাহাবুব জানান, বিষয়টি আমরা সকালে জেনে সেখানে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। এছাড়া তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পাঠকের মন্তব্য